মেরী কুরি, জন বারডীন, লিনাস পলিং এবং ফ্রেডরিক স্যাঙ্গার। চারজন বিজ্ঞানী, নিজ নিজ ক্ষেত্রে অতুলনীয়। তবে তাদের মধ্যে একটা মিল হল, এই চারজনই দুই বার নোবেল পুরষ্কার অর্জনের বিরল সম্মানের অধিকারি। তবে এই লেখাটি শুধুই ফ্রেডরিক স্যাঙ্গারকে নিয়ে।

sanger
সম্পুর্ন কর্মজীবন নিরলস ভাবে কাজ করে গেছেন এই বিজ্ঞানী। বাধ্যতামূলক অবসর গ্রহনের সময় আসার আগ পর্যন্ত নিজের কাজ ব্যাতীত অন্য কিছুতেই তার আকর্ষন ছিলোনা। প্রোটিন এবং ডিএনএ সিকোয়েন্সিং এ তার অবদান বৈপ্লবিক। আধুনিক প্রোটিওমিকস এবং জিনোমিকসের সবচেয়ে বড় অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে তার হাত ধরেই।

তার এই সাফল্যের রহস্য কি? তার আত্নজীবনীতে একটি মূল্যবান সূত্র পাওয়া যায়, যেখানে তিনি বলেছেনঃ
“বৈজ্ঞানিক গবেষনার সাথে জড়িত তিনটি বিষয়- চিন্তা, কথা এবং কাজের মধ্যে শেষটিকেই প্রাধান্য দেই এবং আমি এটাতেই পারদর্শী। চিন্তাভাবনা কিছুটা করতে পারলেও, কথা বলায় আমি মোটেই ভালো না”
এই গুণই তাকে একই সাথে মেধাবী, স্বল্পভাষী এবং বিনয়ী একজন বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। স্যাঙ্গার তার সহকর্মীদের মাঝে যতটা জনপ্রিয় ছিলেন, সাধারনের কাছে ঠিক ততটাই অচেনা। কাজের ক্ষেত্রে যতটা দক্ষতা ছিল, ঠিক ততটাই ছিল প্রচারবিমুখতা। ১৯৫০ সালে যখন প্রোটিনের গঠন সম্পর্কে কারোই স্পষ্ট ধারনা নেই, তখন তিনি একটি রাসায়নিক পদ্ধতি প্রস্তাব করেন যার মাধ্যমে প্রোটিনের প্রতিটা এমিনো এসিড আলাদা ভাবে চিহ্নিত করা সম্ভব। ইনসুলিন হল সেই প্রথম প্রোটিন, যার এমিনো এসিড সিকোয়েন্স তিনি উন্মোচন করেন। প্রোটিনের গঠন উদ্ঘাটনের উপর লিনাস পলিং এর কাজের সাথে নিজের কাজের সমন্বয় করে তিনি মূলত ‘প্রোটিন বিজ্ঞান’এর ভিত্তি রচনা করে দেন।

ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেবার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট ছিল। খ্যাতির মোহে আবিষ্ট না হয়ে তিনি কাজ করে যান। ১৯৭০ সালে, যখন জেনেটিক্সের বিস্তারিত নিয়ে প্রচুর কাজ হয় এবং জেনেটিক্স বেশ গোছানো পর্যায়ে চলে আসে। তখন স্যাঙ্গার আরেকবার চমক দেখান ডিএনএ সিকোয়েন্স করার চমৎকার এক পদ্ধতি আবিষ্কার করে।  তার পদ্ধতির একটি সুন্দর এনিমেশন দেখা যাবে এই ঠিকানায়।

পরবর্তী ২৫ বছর যাবত, হিউম্যান জিনোম প্রজেক্ট সহ প্রতিটা সিকোয়েন্সিং প্রচেষ্টার ভিত্তি হয়ে দ্বারায় স্যাঙ্গারের প্রতিষ্টিত পদ্ধতি। যদিও বর্তমানে ‘Next-Gen method’ স্যঙ্গার মেথডকে প্রতিস্থাপিত করেছে। তবে এটা পরিষ্কার যে স্যঙ্গারের অবদান ব্যাতীত পূর্ববর্তী কোন সাফল্যেরই অস্তিত্ব থাকতোনা। জেমস ওয়াটসন এবং ফ্রান্সিস ক্রিকের সাথে স্যাঙ্গারকেও জিনোমিক্সের জনকের সম্মান দেয়া হয়।

দারুন কারিগরী দক্ষতা ধারনের পাশাপাশি স্যাঙ্গার ছিলেন যথেষ্ট শান্ত, বিনয়ী এবং নিবেদিত এক ব্যাক্তিত্ব- যা তার অর্জনের পেছনে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ন অবদান রেখেছে। তিনি যখন স্নাতক অধ্যয়নরত, তখন তার বাবা-মা কে হারান। এই ঘটনা অবশ্যই বৈজ্ঞানিক সত্য অন্বেষনে তার সাধনার পেছনে প্রভাব রেখেছে। গবেষনা, শিক্ষকতা, ব্যাবস্থাপনা প্রতিটা ক্ষেত্রে তিনি যেন ছিলেন বিজ্ঞানীদের বিজ্ঞানী। বেশিরভাগ বিজ্ঞানীই যখন কর্মজীবনের নির্দিষ্ট পর্যায়ের পর ছাত্রদের পেশায় নির্দেশনা দিয়ে সন্তুষ্ট ছিলেন, তিনি প্রতিটা দিন নিজ হাতে কাজ করে গেছেন। সৃষ্টিশীল অথবা অর্থহীন, কোন কাজকেই তিনি ছোট করে দেখেননি। কাজের প্রতি ভালোবাসা থেকেই তিনি নাইটহুড বর্জন করেছিলেন। তার আশংকা ছিল এই উপাধি হয়তো তার কাজে বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

তার সাফল্যের আরেকটি কারণ হতে পারে যে, তিনি বিশ্বের শ্রেষ্ঠ মোলিকুলার বায়োলজি ল্যাবরেটরিতে কাজ করেছেন। MRC ল্যাবরেটরি অব মোলিকুলার বায়োলজি থেকে পরবর্তীতে আরো ৮ জন নোবেল লরিয়েট বেরিয়েছেন। এরকম এক নোবেল লরিয়েট, তার পোস্টডক থাকার সময়কালীন অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেনঃ তিনি একদিন রাসায়নিক তরলের একটি পাত্র ভূল করে ফেলে দেন। এরপর তিনি ভয় পেয়ে যান এবং আশেপাশে খুজতে থাকেন, কে এটা পরিষ্কার করে দিতে পারবে। যখন তিনি ফিরে আসেন, তিনি দেখলেন স্যাঙ্গার নিজেই সেটা সযত্নে পরিষ্কার করে দিচ্ছেন। যদিও স্যাঙ্গার ছিলেন বেশ গম্ভীর স্বভাবের, কিন্তু ইন্সটিটিউটের অন্যান তরুণ বিজ্ঞানীদের সাথে ছিলেন যথেষ্ট বন্ধুত্বপূর্ন। রোদ বৃষ্টি যাই থাকুক, রোজ সাইকেল চালিয়ে কাজে আসতেন। তরুণদের কথার চেয়ে কাজের মাধ্যমে উৎসাহিত করতেন। তার নামে প্রতিষ্ঠিত স্যাঙ্গার ইন্সটিটিউট জিন সিকোয়েন্সিং এর অগ্রদূত হিসেবে আত্নপ্রকাশ করে এবং হিউম্যান জিনোমের প্রাথমিক খসড়া তৈরিতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। প্রতিষ্ঠানটি নামকরণের মাধ্যমেই এই বিজ্ঞানীর প্রতি সপ্রশংস শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে।

তিনি গবেষনার ক্ষেত্রে যেই নীতি মেনে চলতেন, সেই নীতি মেনেই অবসর গ্রহন করেন। তার অবসর গ্রহনের দিনের শেষ এক্সপেরিমেন্টটি করার পর আর কোনদিন ল্যাবে কাজ করেননি, বরং বাগান করার পেছনে মনোনিবেশ করেন। কর্মজীবনের প্রতিটা দিন কায়মনোবাক্যে কাজ করে দুই বার নোবেল পুরষ্কার অর্জন, মোলিকুলার বায়োলজি এবং জিনোমিক্সে বিপ্লব সৃষ্টি এবং ভালোবেসে গোলাপের পরিচর্যারত একজন মানুষ; একদিনের ঘাটাঘাটিতে এই হল একজন ফ্রেড স্যাঙ্গার। যিনি ১৯, নভেম্বর ২০১৩ চলে গেছেন না ফেরার দেশে। এখন আমাদের সময়, তার উদাহরন অনুসরন করে বেশি বেশি কাজ করা এবং কম কম কথা বলা।

সায়েন্টিফিক আমেরিকান ব্লগে প্রকাশিত Ashutosh Jogalekar এর Winning two Nobel Prizes, turning down knighthoods: The legacy of Fred Sanger (1918-2013)  থেকে অনুপ্রাণিত

লিখেছেন রুহশান আহমেদ

আমি বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান বিষয়ক কনটেন্ট তৈরির একজন স্বাধীন স্বেচ্ছাসেবক। শাবিপ্রবি থেকে জিন প্রকৌশল ও জৈব প্রযুক্তি বিষয়ে একটি স্নাতক ডিগ্রি বাগানোর চেষ্টায় আছি।

রুহশান আহমেদ বিজ্ঞান ব্লগে সর্বমোট 34 টি পোস্ট করেছেন।

লেখকের সবগুলো পোস্ট দেখুন

মন্তব্যসমূহ

  1. আরাফাত রহমান Reply

    লেখাটা দারুণ, সময়োপযোগী। পড়ে ভালো লাগলো। স্যাঙারের কর্মজীবন সম্পর্কে তেমনটা জানতাম না। লেখাটার ভাষা বেশ ভালো। বানানভুল চোখে পড়েছে বেশ কিছু, সেগুলো ঠিক করে দিয়ো।

    • রুহশান আহমেদ Reply

      অনেক ধন্যবাদ কমেন্টের জন্য। স্যাঙ্গারের কর্মজীবন সম্পর্কে আমিও আসলে তেমন তথ্য পাইনি। সেটা সম্ভবত ওনার প্রচারবিমুখতার জন্যই।
      বানানের ব্যাপারে আরো সচেতন হব।

  2. শবনম Reply

    অসাধারণ একটি লিখা ..
    জানা হলো এক নতুন বিজ্ঞানীর জীবন ও আবিস্কারের কথা …
    কখনো বই এ ও পরিনি …হয়ত প্রচার বিমুখ তাই ..
    ….
    ধন্যবাদ আপনাকে

    • রুহশান আহমেদ Reply

      আপনাকেও ধন্যবাদ,
      হ্যা, আসলে আমিও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে এসেই ওনার সম্পর্কে জেনেছি।

আপনার মতামত