জীবনের প্রথম দিকে গনিতকে প্রচন্ড ঘৃণা করতাম। তারপর হঠাৎ ই কোন কারন ছাড়া ভালোবেসে ফেললাম গনিতকে। গনিতের প্রতি একটা আকর্ষণ তৈরি হল । কৌতুহল জন্ম নিল মনে। ভালোবাসা দিয়ে ভরে তোলার চেষ্টা করলাম গনিত কে। ভাবনা কে জাগ্রত করলাম। কৌতুহলের নদী মনের চারিদিকে বেয়ে চলেছে। গনিতের উপর লেখা বই গুলো কিনে পড়তে শুরু করলাম। গনিতকে অনুভব করতে শিখলাম। ধরাবাঁধা নিয়মকে অতিক্রম করতে তীব্র ইচ্ছা জন্ম নিল মনে। আমরা কি শুধু পরীক্ষার পাশ করার জন্য অংক করি?? গনিতের মত মজার বিষয় আর হতে পারে না। একবার যদি গনিত সমুদ্রে প্রবেশ করা যায় তবেই এর প্রকৃত মজা উপলব্ধি করা যাবে।
এক সময় ভাবলাম কিছু লিখতে হবে, এমন কিছু করতে হবে যাতে মানুষ গনিতকে ভয় না পায়, উপলব্ধি করতে শেখে।গনিতকে অনুভব করতে হয় হৃদয় দিয়ে। আমি কোনকিছু শিখলে তা যতক্ষন কাউকে না শেখায় ততক্ষণ মজা পায় না। ধারাবাহিক ভাবে গনিতের মজার মজার অংশ গুলো নিয়ে আলোচনা করবো বলে ভাবছি। গনিতের উপর লেখা এটা আমার প্রথম আর্টিকেল।

আজ আলোচনা করবো π নিয়ে :

গনিতে রয়েছে পাই(π) এর মত সুন্দর, মজার জিনিস।। π হলো একটা সংখ্যা,যার অনুপাত বের করা যায় না। সাদা কাগজের উপর গোল বৃত্ত আঁকেনি এমন মানুষ খুব কমই আছে।একটা বৃত্তের পরিধি এবং তার ব্যাসের অনুপাত হলো পাই।বৃত্তটি ছোট হোক বা বড় হোক তার পরিধি ও ব্যাসের অনুপাত হবে পাই। ১৭৬১ সালে জোহান হেনরিখ
ল্যাম্বার্ট প্রমান করে গেছেন যে, π হল অমূলদ সংখ্যা অর্থাৎ
এটিকে কখনো দুটি পুর্ন সংখ্যার
ভগ্নাংশ রুপে প্রকাশ করা যাবে না,যার মান কোনদিনই শেষ হবে না এবং এটি দশমিকের পর অসীম পর্যন্ত বিস্তৃত হবে, খুব সহজ ভাবে এক কথায় বললে বলা যায় আমরা কখনোই পাই এর সঠিক মান নির্ণয় করতে পারব না। পাইয়ের মান কোনদিনই শেষ হবে না।

১)
* গানিতিক ইতিহাস অনুযায়ী, আজ থেকে চার হাজার বছর আগেও ব্যাবিলনের মানুষেরা জানত π এর ব্যাপারে।

* খ্রীষ্টপূর্ব ১৫০ সালে গনিতবিদ,ত্রিকোণমিতির জনক টলেমি প্রথম Π এর মান নিনয় করেন,

* ৪৮০
সালে চীনা গণিতজ্ঞ জু চোঙ্গজি
পাই এর আসন্ন মান বের করলেন
৩৫৫/১১৩ এবং প্রমাণ করলেন 3.1415926
< π < 3.1415927

* π এর ব্যাপারে 500 সালে আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশের গনিতবিদ আর্যভট্ট একটা মজার সুত্র ও ধারনা দিয়েছেন। তার মতে, (100+4)×8+62000÷20000=3.1416/π

* π সম্পকে আর্কিমিডিস বলে গিয়েছিলেন ; 221/71<π<22/7। তিনি মুলত সম ছিয়ানব্বইভূজ নিয়ে গবেষণায় এটা নির্নয় করেন।আর্কিমিডিস মৃত্যুর সময় পাইয়ের মান বের করছিলেন।

* ফিবোনাক্কি 1220 সালে পাইএর মান হিসেবে 3.141818 ব্যবহার করেন।

* 1665 সালে আইজ্যাক নিউটন পাই এর মান নির্ণয় করেনএবং দশমিকের পর 16 ঘর পর্যন্ত তিনি আবিষ্কার করেন।

* 1706 সালে উইলিয়াম যোনস সর্বপ্রথম পাই এর প্রতীক হিসেবে π ব্যবহার করেন,যা পরবর্তীতে বিজ্ঞানী অয়লার জনপ্রিয় করে তোলেন ।

* সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট সহজাত গনিতবিদ, আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশের গর্ব শ্রিনিভাস রামানুজন1910 সালে পাই এর মান নির্ণয়েরএকটি মজার সূত্র আবিস্কার করেন।

* পরমানুর ইলেকট্রন আবিষ্কারক রাদারফোড দশমিকের পর 202 ঘরপর্যন্ত π এর মান নির্ণয় করেছিলেন ।

* গনিতবিদ গ্রেগরী ও লিবনিজ যৌথ ভাবে পাইয়ের মান নির্নের সুত্র আবিষ্কার করেন।

* গনিতবিদ উইলিয়াম শ্যাংকস 15 টি বছর ধরে π এর মান নির্নয় করেছিলেন। তিনি পাইয়ের মান 707 ঘর পর্যন্ত বের করেছিলেন তারমধ্যে 529 ঘর ঠিক ছিল আর বাকিগুলো ভুল। তার ভুল ধরেছিলেন “দ্যা মরগ্যান “।

২) পাই এর রয়েছে একটি স্বতন্ত্র ভাষা গণিত প্রেমীরা উদ্ভাবন করেছেন পাইয়ের একটি ভাষা, যার নাম“পাইলিশ”। গনিত প্রেমীদের কাছে একটা মধুর ভাষা।

৩) π মুখস্থ করার প্রতি একটা তীব্র আকর্ষণ গনিত প্রেমীদের মনে,গনিতের প্রতি যাদের ভালোবাসা আছে তাদের অনেকেই পাইয়ের মান কয়েকশ ঘর পর্যন্ত মুখস্থকরে থাকেন। গিনেজ বুক অনুসারে জাপানের লু চাও π এর মান বলতে পেরেছিল 67970 ঘর পর্যন্ত।

পাই একটি অমুলদ সংখ্য যার মান কোনদিন শেষ হবে না। 3.1415926535
8979323846
2643383279
5028841971
6939937510
5820974944
5923078164
0628620899
8628034825
3421170679
8214808651
3282306647
0938446095
5058223172
5359408128
4811174502
8410270193
8521105559
6446229489
5493038196
4428810975
6659334461
2847564823
3786783165
2712019091
4564856692
3460348610
4543266482
1339360726
0249141273
7245870066
0631558817
4881520920
9628292540
9171536436
7892590360
0113305305
4882046652
1384146951
9415116094
3305727036
5759591953
0921861173
8193261179
3105118548
0744623799
6274956735
1885752724
8912279381
8301194912
9833673362
4406566430
8602139494
6395224737
1907021798
6094370277
0539217176
2931767523
8467481846
7669405132
0005681271
4526356082
7785771342
7577896091
7363717872
1468440901
2249534301
4654958537
1050792279
6892589235
4201995611
2129021960
8640344181
5981362977
4771309960
5187072113
4999999 837
2978049951
0597317328
1609631859
5024459455
3469083026
4252230825
3344685035
2619311881
7101000313
7838752886
5875332083
8142061717
7669147303
5982534904
2875546873
1159562863
8823537875
9375195778
1857780532
1712268066
1300192787
6611195909
2164201989
3809525720
1065485863
2788659361
5338182796
8230301952
0353018529
6899577362
2599413891
2497217752
8347913151
5574857242
4541506959
…………………
…………………এভাবে চলতেই থাকবে। অন্তত কাল এভাবেই চলবে।পাই প্রেমীরা এর মান বের করছে সেই প্রাচীন কাল থেকে।

** আমেরিকার নাসা বিজ্ঞানীরা π এর 39 ঘর পর্যন্ত মান ব্যাবহার করেন। এতে করে পৃথিবীর পরিধি, ব্যাস, ব্যাসার্ধ অতি সুক্ষ্ম ভাবে নির্নয় করা যায়।

** পাই দিবস পালন করা হয় 14 ই মার্চ,
যা পাইয়ের মান 3.14159265…….
থেকে এসেছে। আমেরিকান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, : 3 = মার্চ মাস আর 14 তারিখ। পাই এত সুন্দর যে তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।

গনিত প্রকৃতপক্ষে খুবই মজার। আজ তো π নিয়ে আলোচনা করলাম। আরেকদিন আলোচনা করবো সংখ্যা নিয়ে। সংখ্যা খুবই মজার বিষয়।

কল্পনা করুন আপনি একটি নদীর কিনারায় দাড়িয়ে আছেন। আসুন আমরা সবাই মিলে ভাবনার নদি অতিক্রম করি, ভাবনাকে জাগ্রত করি। আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি কেন (-,-=+) হয়? কেন (a+b)^2 = a^2+2ab+b^ 2 ????
আসুন ভাবতে শুরু করি। গনিতের দুনিয়ায় মুক্ত বিচরন শুরু করি। যদি গনিত নিয়ে কোন প্রশ্ন জাগে মনে তবে আমাকে জানাবেন।
আমার ই-মেইল :shaonbd188@gmail.comগনিতের প্রতি ভালোবাসা

মন্তব্যসমূহ

  1. আরাফাত রহমান Reply

    বিজ্ঞান ব্লগে স্বাগতম। গণিতের ঘৃণা ভালোবাসায় পরিণত হয়েছে জেনে ভালো লাগলো। পাই নিয়ে লেখাটা মজার। আশা করি আরো মজার লেখা উপহার দেবেন। পরামর্শ, লেখা প্রকাশের আগে অভ্র স্পেল চেকার দিয়ে অবশ্যই ভুল বানান ঠিক করে নেবেন। যেমন গনিত > গণিত।

  2. সিরাজাম মুনির শ্রাবণ Reply

    বিজ্ঞান ব্লগে স্বাগতম। গণিতের প্রতি আপনার চিন্তাধারা ভাল লেগেছে। রামানুজন ১৯১০ সালে পাইয়ের মান নির্ণয় করতে যে সূত্র আবিষ্কার করেছিলেন তা নিয়ে বিস্তারিত জানতে আগ্রহ বোধ করছি। আশাকরি আমাদেরকে আরও গণিতের মজার মজার লেখা উপহার দিবেন।

  3. রুহশান আহমেদ Reply

    অভিনন্দন আপনাকে বিজ্ঞানব্লগে প্রথম পোস্টের জন্য। আপনার উপস্থাপিত তথ্যগুলো যদিও বেশ আগ্রহদ্দীপক। তবে, তালিকাপ্রবণতা পরিহার করে আরেকটু গুছিয়ে তথ্যগুলোর মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন করে লেখার চেষ্টা করলে আমরা যারা গণিতকে একটু ভয়টয় পাই তাদের জন্য ভালো হয়।

    শুভকামনা সবসময়।

  4. ডা: প্রবীর আচার্য্য নয়ন Reply

    আপনার লেখা পড়ে ‌‌’পাই’ এর প্রতি ভালোবাসা আরো বেড়ে গেলে। ধন্যবাদ।

  5. সৈয়দ ইমাদ উদ্দিন শুভ Reply

    লেখা ভালো লেখেছে। ভাবনার নদী বেয়ে গণিতকে ভালোবাসতে পছন্দ করি আমিও। যাহোক, পাইলিশ বিষয়টা সম্বন্ধে আরও কিছু জানালে খুশি হতাম।

আপনার মতামত