বিজ্ঞানী সত্যেনন্দ্রনাথ বসুর কথা বলা যাক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকার সময় তার মেয়ে একবার সিনেমা দেখার বায়না ধরেন। সে সময় তিনি জটিল একটি গাণিতিক সমস্যা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এদিকে মেয়ে নাছোড়বান্দা। শেষে মেয়ের জেদের কাছে হার মেনে ঘোড়ার গাড়িতে করে মেয়েকে নিয়ে গেলেন মুকুল সিনেমা হলে। সেখানে পৌঁছে দেখেন তিনি বাসায় টাকা ফেলে এসেছেন। মেয়েকে সেখানে রেখে গাড়োয়ানকে নিয়ে বাসায় ফিরলেন টাকা নিতে। বাসায় পৌঁছে টাকা নেয়ার সময় টেবিলে দেখেন অসমাপ্ত গাণিতিক সমস্যাটা পড়ে আছে। তখন তিনি মেয়ের কথা ভুলে সেখানেই বসে পড়েন সমস্যা সমাধানে। এদিকে গাড়োয়ান যখন দেখলেন অনেকক্ষণ সময় পার হয়েছে তখন আর অপেক্ষা না করে বাড়িতে ঢুকে পড়লেন। ঢুকে দেখেন, সত্যেন বসু টেবিল-চেয়ারে নিমগ্নভাবে অঙ্ক কষে চলছেন। গাড়োয়ান সত্যেন বসুকে মেয়ের কথা মনে করিয়ে দিলে তিনি সম্বিত ফিরে পান [১]।

এরকম অনেক গল্প আমরা শুনেছি। যেমন আইনস্টাইন হোটেলের ঠিকানা হারিয়ে ফেলেন। আর্কিমিডিস গোসল করতে নেমে স্বর্ণ-খাদের সমস্যা সমাধান খুঁজে পেয়ে দিগম্বর অবস্থায় রাস্তায় বের হয়ে পড়েন “ইউরেকা! ইউরেকা!!” চিৎকার করতে করতে। এ মুখরোচক গল্পগুলো মানুষের মুখে মুখে ফেরে। এর কারণ হলো আমরা বিজ্ঞানীদের আত্মভোলা মানুষ হিসেবে ভাবতে পছন্দ করি। তবে বিজ্ঞানীদের এভাবে চিহ্নিত করায় একটা সমস্যা রয়েছে। তাঁরা আসলে আত্মভোলা নন। অনেক সময় বিজ্ঞানীরা গভীর সমস্যা সমাধানে এতোটাই নিমজ্জিত হয়ে যান যে অন্য কোন কিছুর কথা তাদের মনেই থাকে না। বলা বাহুল্য, এটাকেই মনস্তত্বে নিমগ্ন-দশা বা flow বলা হয়।

 

 

মনোযোগ দেয়ার প্রক্রিয়া
নিমগ্ন দশার কিছু বৈশিষ্ট্য আমাদের চেনা। প্রথমতঃ, নিমগ্নতা হলো কোন কাজে গভীর মনোযোগ দেয়ার ফলে উৎপন্ন একটা পরিস্থিতি। দ্বিতীয়ত, ঐ কাজটি চ্যালেঞ্জিং। তৃতীয়ত, কাজটির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা থাকতে হবে।

road

চিত্র: একটি রাস্তার দৃশ্যপট। ছবিসূত্র: লাইফহ্যাকার।

আমরা যখন কোন বিষয়ে মনোযোগ দেই তখন মস্তিষ্কে কি ঘটে সে প্রক্রিয়া জানা যাক। যখন আমরা ঠিক করি কোন বিষয়ে মনোযোগ দেব, তখন মস্তিষ্কের মনোযোগ-ব্যবস্থাটি দুইটি ধাপে কাজ করে [২]। এ দুইটি ধাপ হলো ইন্দ্রিয়প্রাপ্ত তথ্য বাছাই করে সেখানকার অর্থ উদ্ধার করা। বিস্তারিতভাবে বলতে গেলে:

১) কোন দৃশ্যপটে যত তথ্য আছে তা চোখের মাধ্যমে মস্তিষ্কে প্রবেশ করে। তথ্যগুলোকে প্রক্রিয়াজাত করে খুঁজতে হয় কি বিষয়ে মনোযোগ দিতে হবে। প্রক্রিয়াটিকে কোন ঝাপসা ছবির সাথে তুলনা করা যায় যা ধীরে ধীরে পরিস্কার হওয়া শুরু করছে।

২) দ্বিতীয় ধাপটি হলো প্রাপ্ত তথ্যগুলোর একটিমাত্র অংশে মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করা। প্রক্রিয়াটা তুলনা করুন প্রথম ধাপে দেয়া ছবির উদাহরণের সাথে। ঝাপসা ছবিটি পরিস্কার হতে থাকার সময় মস্তিষ্ক এর একটি অংশে মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করে অংশটি বিবর্ধিত করতে থাকে। ছবিটির বাকি অংশের তুলনায় ঐ অংশটি অধিক স্বচ্ছ ও বিস্তৃত থাকে।

মনোযোগ প্রক্রিয়াটি ঐচ্ছিক হোক, কিংবা স্বয়ংস্ক্রিয় হোক – উভয়ক্ষেত্রে দুই ধাপে মনোযোগ দেয়ার প্রক্রিয়াটি একই। আপনি যখন কোন বিষয়ের উপর মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করেন তখন চারপাশের পরিবেশ সম্পর্কে আপনার চেতনা বদলে যায়। এসময় চারপাশের ঘটনাগুলো অগ্রাহ্য করার ক্ষমতা বেড়ে যায়।

কিন্তু মনোযোগ ভেঙে যাওয়ার ব্যপারটি কি রকম? মনোযোগ ভেঙে যাওয়ার প্রক্রিয়াও মনোযোগ দেয়ার সাথে যুক্ত। মনোযোগ ভাঙার মূলে রয়েছে একটি প্রাচীন বিবর্তনীয় প্রক্রিয়া। অতর্কিত বিপদে মানুষকে সচেতন করে আত্মরক্ষা করার জন্য এর উৎপত্তি। কোন কাজে সক্রিয়ভাবে মনোযোগ দিতে সময় ও শ্রম দিতে হয়। অন্যদিকে মনোযোগ ভাঙার প্রক্রিয়াটি মানুষের স্বভাবজাত। হঠাৎ উজ্জ্বল রঙ বা আলো এবং জোড়ালো শব্দ মনোযোগ ভাঙার জন্য মূল ভূমিকা রাখে। সুদূর অতীতে বুনো জন্তুর গোঙানী বা গাছের ফাঁকে হলুদ রঙের ঝিলিক শিকারী-সংগ্রাহক মানুষকে সতর্ক করে তুলতো। এখনো অ্যাম্বুলেন্স তীক্ষ্ম শব্দ ও লাল-নীল আলোর মাধ্যমে আমাদের সতর্ক করে দেয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, একবার কোন কারণে মনোযোগ ভেঙে গেলে তা আবার কেন্দ্রীভূত হতে ২৫ মিনিটের মতো সময় লাগতে পারে [৩]। অর্থাৎ মনোযোগ দেয়াটা একটি ব্যয়বহুল প্রক্রিয়া। সুতরাং কোন কাজে মনোযোগ দিতে চাইলে বুদ্ধিমানের কাজ হবে মনোযোগ ভাঙতে পারে এমন জিনিস দূরে রাখা। যেমন মুঠোফোন বন্ধ বা নীরব করে রাখা। ইন্টারনেট প্রয়োজন না হলে বন্ধ করে রাখা। এমন কোন জায়গায় কাজ করা যেখানে অন্য কেউ বিরক্ত করার সম্ভাবনা কম। এছাড়া যে টেবিলে কাজ করা হবে সেখানে কাজের জিনিস (বই-পত্র ইত্যাদি) ছাড়া অন্যান্য জিনিসপত্র দূরে সরিয়ে রাখা।

নিমগ্ন দশা এক ধরণের অতি-মনোযোগের ফলে সৃষ্ট অবস্থা। এ সময় আমরা নাওয়া-খাওয়ার কথা ভুলে যাই, সময়জ্ঞান থাকে না। একমাত্র ধ্যানজ্ঞান হয়ে পড়ে হাতের কাজের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা। কাজ করতে তখন অন্যরকম আনন্দ ও উদ্দীপনা পাওয়া যায়। তবে শুধু মনোযোগী হলেই হবে না। এ দশায় প্রবেশ করতে হলে কঠিন কাজের চ্যলেঞ্জের পাশাপাশি সে কর্মসম্পাদনের জন্য দরকারী দক্ষতাও থাকতে হবে। নিমগ্ন দশার সবচেয়ে বড় বিষয়টি হলো এ সময় কাজকে আর অপ্রিয় মনে হয় না। এ দশাতে কাজ হয়ে যায় উত্তেজনাকর খেলা।

 

 

কাজ যখন খেলা
আমরা জীবনে অধিকাংশ কাজ করে থাকি দ্বিতীয় কোন কাজের উদ্দেশ্যে। আমরা পেশাগত জীবনে যেসব কাজ করি তার প্রধান উদ্দেশ্য থাকে অর্থ উপার্জন। উপার্জিত অর্থ ব্যয় করি নিজের এবং পরিবারের বিভিন্ন প্রয়োজন মেটাতে। নতুন নতুন প্রয়োজন মেটাতে পুনরায় অর্থ উপার্জনের দরকার হয়। তাই জীবিকা নির্বাহের জন্য কাজ করতেই হয়। চক্রটি পুনরায় একইভাবে ঘুরতে থাকে। শিক্ষার্থীরা অবশ্য সরাসরি জীবিকা নির্বাহের সাথে জড়িত নন। তবে তাদের লেখাপড়ার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্যও হলো শিক্ষা শেষে জীবিকা খুঁজে নেয়া। অর্থাৎ আমরা অধিকাংশ সময়েই শুধুমাত্র হাতের কাজটি ‘করা’-র খাতিরেই কাজ করি না। কাজ করার পেছনে অন্য দ্বিতীয় একটি উদ্দেশ্য থাকে। এ দ্বিতীয় উদ্দেশ্য আবার তৃতীয় কোন প্রয়োজন মেটায়। এভাবে একটি কাজের উদ্দেশ্যের সাথে অন্যটির প্রয়োজন যুক্ত থাকে [৪]।

এর ব্যতিক্রম হলো খেলা। ছোটবেলায় যখন আমরা খেলতাম, তখন খেলার পেছনে দ্বিতীয় কোন উদ্দেশ্য থাকতো না।  খেলায় প্রতিটি ধাপ, প্রতিটি পদক্ষেপ ও গতিবিধি শুধুমাত্র ঐ মুহূর্তের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার আনন্দ নেয়ার জন্য সম্পাদিত হতো। ছোটরা খেলার মধ্যে একেবারে নিমজ্জিত হয়ে যায়। তাদের একমাত্র লক্ষ্য থাকে ‘খেলা’। খেলার প্রতিটি মুহুর্তে নিঙরে নিঙরে তারা উত্তেজনার আনন্দ লাভ করে। সেই ছোট্ট আমরা বড়ো হওয়ার জীবনব্যাপী খেলাটি খেলতে গিয়ে খেলার আনন্দের কথা ভুলে যাই। আমাদের কাজের উদ্দেশ্য হয়ে পড়ে দ্বিতীয় একটি প্রয়োজন সাধন – এই চক্রটি চলতেই থাকে।

তবে যখন কোন দুরূহ কাজ করার দক্ষতা আমাদের থাকে, কাজটাও হয় চ্যালেঞ্জিং ও তাৎপর্যপূর্ণ, তখন আমরা নিজেদের মধ্যে flow অনুভব করি। তখন ঐ কাজে আমরা নিমজ্জিত হয়ে যাই। লাভ করি নিমগ্নতার সুখ। তখন কাজ হয়ে পড়ে  খেলা। তখন কাজটা যত কঠিনই হোক না কেন আমরা কোন ক্লান্তি অনুভব করি না।

নিমগ্নতা একটা চমৎকার অভিজ্ঞতা, সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। সমস্যা হলো এই দশায় ইচ্ছে হলেই প্রবেশ করা যায় না। তবে এ পর্যায়ে পৌঁছতে হলে নতুন নতুন কাজ করার দক্ষতা বাড়ানো সম্ভব। কিংবা এমন কোন দুরূহ কাজ হাতে নেয়া যায়, যা চ্যলেঞ্জিং হলেও সম্পন্ন করার মতো যোগ্যতা কারো রয়েছে। অর্থ-বিত্ত ইত্যাদির পেছনে না ছুটে এরকম চ্যালেঞ্জিং কাজে যোগ্য হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলা জীবনে আনন্দময় সুখ লাভের নিশ্চিত উপায় হতে পারে।

নিমগ্নতা আমাদের দ্বিতীয় শৈশবে ফিরিয়ে নিতে পারে।

 

নিমগ্ন দশা সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে পড়ুন ‘নিমগ্নতার সুখ‘ লেখাটি।

তথ্যসূত্র
[১] ছোটদের বিজ্ঞান-মনীষাঃ বিজ্ঞানী সত্যেন্দ্রনাথ বসু, সাদ আব্দুল ওয়ালী, http://e-learningbd.com/
[২] Train Your Brain for Monk-Like Focus, Thorin Klosowski, http://lifehacker.com/
[৩] Meet the Life Hackers,  Clive Thompson,  http://www.nytimes.com/
[৪] Tennis with Plato, Mark Rowlands, https://aeon.co

লিখেছেন আরাফাত রহমান

আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগ হতে এমএস ও বিএস সম্পন্ন করে বর্তমানে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা করছি। যুক্ত আছি বায়ো-বায়ো-১ ও অনুসন্ধিৎসু চক্র বিজ্ঞান সংগঠনের সঙ্গে। আমার প্রকাশিত বই "মস্তিষ্ক, ঘুম ও স্বপ্ন" (প্রকৃতি পরিচয়, ২০১৫)।

আরাফাত রহমান বিজ্ঞান ব্লগে সর্বমোট 65 টি পোস্ট করেছেন।

লেখকের সবগুলো পোস্ট দেখুন

মন্তব্যসমূহ

  1. Prince Khan Reply

    আপনার আর্টিকেলের প্রথম প্যারাটি আমি জগদিশ চন্দ্র বশুর বেলায়ও পড়েছি। ঠিক একই রকম কাহিনী কিভাবে দুজনের বেলায় ঘটে! নাকি একজনের ঘটনা আরেক জনের উপর চাপিয়ে দেয়া হয়?
    জগদিশ চন্দ্রবশুও সিনেমা দেখার জন্য যায় সিনেমা হলে আর বাড়িতে ফেলে আসে সিনেমার টিকিট। সেই টিকিট বাড়িতে আনতে গেলে জগদীশচন্দ্র বশু মগ্ন হয়ে পড়েন তার ল্যাবে।

    • আরাফাত রহমান Reply

      হতে পারে, অসম্ভব না। সত্যেন বসুর ক্ষেত্রে অবশ্য তার মেয়ের কথাটি উল্লেখ আছে। আপনি কোথায় পড়েছেন? সূত্র দিতে পারবেন?

  2. সিরাজাম মুনির শ্রাবণ Reply

    চমৎকার লেখা। কাজের সময় মগ্নতা নষ্ট করতে পারে এরকম জিনিস সাথে রাখা একদমই উচিৎ নয়। কষ্টেরও আনন্দ আছে। এই আনন্দের নির্মলতাকে নষ্ট করে দিতে পারে এসব উপাদান।

    আর এই লেখাটি আপনার আগের লেখা “নিমগ্নতার সুখ” এর বেশ কিছু কথা ঘুরে ফিরে এসেছে। আরেকটু হলেই এটা হয়ে যেত তার পুর্ববর্তী লেখার কার্বন কপি। যদি সংকলন করেন তাহলে এই দুটি লেখা একত্র করে একটি লেখা বানিয়ে ফেইলেন।

আপনার মতামত