বাংলাদেশে ধূমকেতু পর্যবেক্ষণ

’’ধূমকেতু শব্দের মানে ধোঁয়ার নিশান। ওর চেহারা দেখে নামটার উৎপত্তি। গোল মুন্ড আর তার পিছনে উড়ছে উজ্জ্বল একটা লম্বা পুচ্ছ। এই পুচ্ছটা অতি সূক্ষ্ম বাষ্পের।’’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর বিশ্বপরিচয় গ্রন্থে ধূমকেতুর পরিচয় ঠিক এভাবেই তুলে ধরেছেন। ধূমকেতু সৌরজগতের আদি বস্তুসমূহের অন্যতম। যেসব বছর আকাশে ধূমকেতুর আবির্ভাব ঘটে সেবছরগুলো জ্যোতির্বিদ ও আকাশপ্রেমীদের জন্য থাকে খুব আনন্দের। বেশিরভাগ ধূমকেতুর আলো খালি চোখে দেখতে পাবার মতো তেমন উজ্জ্বল হয়না। এটি উজ্জ্বল না অনুজ্জ্বল দেখা যাবে তা নির্ভর করে সূর্য, পৃথিবী এবং এর নিজের দূরত্বের উপর। সেক্ষেত্রে আকাশে যে ধূমকেতু দেখা দিয়েছে তা সাধারণ লোকে জানতেও পারেনা। তাই আকাশে ধূমকেতু দেখতে পাওয়াটা এমনিতে বিরল সুযোগ। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বাংলাদেশ থেকে যেসব ধূমকেতু পর্যবেক্ষণের কথা জানা গেছে এখানে তাদের কথা…
বিস্তারিত পড়ুন ...

মনীষার পাথরের বন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্বের অধ্যাপক নাইজেল হিউজ রচনা করেছেন মনীষার পাথরের বন । জীবাষ্ম আর জীবাষ্মায়ন মনীষার পাথরের বন  বইটির মূল প্রতিপাদ্য বিষয়। বিলুপ্ত জীবসমূহের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রমাণগুলোকেই বলা হয় ফসিল বা জীবাস্ম। সবাইকে বিশেষ করে কিশোর কিশোরীদের কাছে ভূত্ত্ববিদ্যার সঙ্গে পরিচিত করানোর উদ্দেশ্যে জিওলোজিক্যাল সোসাইটি অব ইন্ডিয়ার উদ্দ্যোগে বইটি প্রকাশিত। লেখক তাঁর নিজস্ব পাঠ্যবিষয় ভূতত্ত্বের মূল বিষয়কে জনবোধ্য বিজ্ঞানের ভাষায় সহজ ঢঙে তুলে ধরেছেন। বইটির অনুবাদ করেছেন ড.দীপেন ভট্টাচার্য। দীপেন ভট্টাচার্যের সরল সাবলীল শব্দ বিন্যাস বইটিকে অনেক মনোগ্রাহী করে তুলেছে। বিশেষ করে অনুবাদকের রচিত দিতার ঘড়ি বা অভিজিৎ নক্ষত্রের আলো কিংবা ব্লগের লেখাগুলো যাদের পড়বার সুযোগ হয়েছে তারা হয়তো অবহিত আছেন দীপেন ভট্টাচার্যের বাংলা শব্দশৈলী ও কুশলতা সম্পর্কে। আর যারা বাংলাতে জনপ্রিয় বিজ্ঞানের বই প্রকাশ বা লেখালেখি…
বিস্তারিত পড়ুন ...

২৩ জুন পৃথিবীর নিকটবর্তী হচ্ছে চাঁদ

২৩ জুন, ২০১৩ পৃথিবীর খুব কাছাকাছি আসছে চাঁদ। উপবৃত্তাকার কক্ষপথে পৃথিবী থেকে চাঁদের এই নিকটতম অবস্থানকে অনুভূ বা পেরিজি বলা হয়। ঐ সময় চাঁদ পৃথিবী হতে ৩,৫৬,৯৯১ কিলোমিটার বা ২,২১,৮২৪ মাইল দূরত্বে অবস্থান করবে। পৃথিবী থেকে চাঁদের গড় দূরত্ব ৩,৮৪,৪০২ কিলোমিটার। ২০১৪ সালের আগস্ট মাসের আগে চাঁদ পৃথিবীর এতো কাছে আর আসছে না। ২৩শে জুন, অনুভূ সময়ের কাছাকাছি সূর্য, পৃথিবী ও চাঁদ প্রায় একটি সরল রেখায় অবস্থান করবে, সেই জন্য তখনই পূর্ণচন্দ্র বা পূর্ণিমা হবে। যেহেতু অনুভূ ও পূর্ণিমা প্রায় একই সময়ে সংঘঠিত হচ্ছে সেই জন্য এই চাঁদ গড় দৃশ্যমান চাঁদের চাইতে কিছুটা বড় ও উজ্জ্বল দেখাবে। ঢাকা সময় রবিবার বিকেল ৫টা ৩২ মিনিটে চাঁদ অনুভূ অবস্থানে আসবে, তবে পূর্ণচন্দ্র বা পূর্ণিমার সর্বোচ্চ মূহুর্তটি ঘটবে বিকেল ৫টার দিকে। ২৩শে জুন…
বিস্তারিত পড়ুন ...

বর্তমান আর্থ সামাজিক প্রেক্ষাপটে গণবিজ্ঞান চর্চা: সম্ভাবনা ও প্রতিকূলতা- শীর্ষক বিজ্ঞান আলোচনা

দেশের অন্যতম বিজ্ঞান সংগঠন অনুসন্ধিৎসু চক্রের ৬ষ্ঠ প্রতিনিধি সম্মেলন, ২০১৩ উপলক্ষে ‘‘বর্তমান আর্থ সামাজিক প্রেক্ষাপটে গণবিজ্ঞান চর্চা: সম্ভাবনা ও প্রতিকূলতা’’ শীর্ষক আলোচনা সভার আযোজন করা হয়েছে। আলোচনা আগামী ১ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার বিকাল ৩টা ৩০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের মিলনায়তনে (বিজ্ঞান গ্রন্থাগারের সাথের ভবন)অনুষ্ঠিত হবে। এতে বক্তব্য রাখবেন বিজ্ঞান লেখক ও সংগঠক ড. আলী আসগর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্টের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার (রিভারসাইট) জ্যোতিপদার্থবিদ অধ্যাপক দীপেন ভট্টাচার্য। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন জন বিজ্ঞান ফাউন্ডেশনের সভাপতি জনাব আইয়ুব হোসেন।অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করবেন অনুসন্ধিৎসু চক্রের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক জনাব শাহজাহান মৃধা।আলোচনা অনুষ্ঠান সবার জন্য উন্মুক্ত।
বিস্তারিত পড়ুন ...

‘দক্ষিণ এশিয়ার পানি সম্পদ: বিরোধ থেকে সহযোগিতা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অনুসন্ধিৎসু চক্র

সম্প্রতি (৪ ও ৫ জানুয়ারি, ২০১৩) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো ‘দক্ষিণ এশিয়ার পানি সম্পদ: বিরোধ থেকে সহযোগিতা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন। এর মূল আয়োজক ছিলো বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট নেটওয়ার্ক (বেন)। এই সম্মেলনের লক্ষ্য ছিলো- গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা অববাহিকার দেশ সমূহের পানি সম্পদ উন্নয়ন কার্যক্রম, তার পেছনে কার্যকর মূল নীতি দর্শন ও কাজের প্রক্রিয়ার অভিজ্ঞতাসমূহ নিরীক্ষণ, এই এলাকার বিদ্যমান পানি উন্নয়ন সমস্যা, বিস্তৃত অববাহিকা ভিত্তিক নদী দৃষ্টিভঙ্গি ও বহুমুখী সহযোগিতার সম্ভাবনা বিষয়ে অববাহিকা অঞ্চল ও আন্তর্জাতিক মন্ডলের জনগণকে সচেতন করা এবং বিদ্যমান মতামত ও ধারণা সমূহের খোলামেলা আদান প্রদান, বিশেষজ্ঞ ও কর্মীদের মধ্যে ঐক্য সৃষ্টি। আন্তর্জাতিক এই সম্মেলনে দেশের অন্যতম বিজ্ঞান সংগঠন অনুসন্ধিৎসু চক্র এসোসিয়েট আয়োজক হিসেবে কাজ করেছে। সম্মেলনে দুই ধরনের অধিবেশন ছিলো: বিশেষজ্ঞদের সভা…
বিস্তারিত পড়ুন ...

স্মরণ: অশোক বন্দ্যোপাধ্যায়

বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির প্রয়োগেই একজন সাধারণ মানুষ তার দৈনন্দিন ভাবনায়, সামাজিক–রাজনৈতিক–অর্থনৈতিক চিন্তায়, বিশ্বাসে–অবিশ্বাসে, সঠিক ন্যায়সঙ্গত মানবিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে, আত্ননির্ভরতা অর্জন করতে পারে, জীবনের সামগ্রিক মূল্যবোধকে উপলব্ধি করতে পারে। এহেন পরিশীলিত মন গড়ে উঠলেই আমরা তাকে বিজ্ঞান মনষ্ক বলতে পারি। –ড. অশোক বন্দ্যোপাধ্যায় সত্তরের দশকে সাধারণ মানুষের কাছে বিজ্ঞানকে নিয়ে যাওয়ার এক আন্দোলনে মেতেছিলো কিছু তরুণ। পদার্থবিজ্ঞানের কৃতী ছাত্র অশোক বন্দ্যোপাধ্যায় (১৯৫০-২০০৮) ছিলেন তাঁদেরই মধ্যমণি। তাঁর সম্পাদনায় কলকাতা থেকে ১৯৮০ থেকে দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে সহজ করে বাংলাতে লক্ষ্যভেদী বিজ্ঞান আলোচনার এক নিজস্ব বলয় তৈরি করেছিলো ‘উৎস মানুষ’ পত্রিকা। যার মূলকথা-এলিট বিজ্ঞান নয়, চারধারে প্রতি দিনের জীবনে, কর্মে ও সংষ্কৃতিতে ওতপ্রোত বিজ্ঞান। বহু সংগঠন ও সামাজিক নানা কাজকর্মে যুক্ত মানুষজন ‘উৎস মানুষ’ থেকে নিয়েছেন কাজের প্রেরণা। বিজ্ঞানমনষ্ক মানবিক মূল্যবোধ গড়ার…
বিস্তারিত পড়ুন ...