প্রিয়নের গল্প

ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের একটি দ্বীপরাষ্ট্র স্যান লরেঞ্জোর শাসক 'পাপা মনজানো'র বাবা ছিলেন একজন নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী। তার একটি আবিষ্কার হল রহস্যময় আইস-নাইন। যার সংস্পর্শে এলে স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানিও জমে গিয়ে আইস-নাইনে পরিণত হয়। বহুকাল সেই আইস নাইন ছিল লোকচক্ষুর আড়ালে। একসময় পাপা মনজানো ক্যান্সারের যন্ত্রণা সইতে না পেরে আইস-নাইন খেয়ে আত্নহত্যা করেন। তার জমে যাওয়া দেহের স্পর্শে এসে তার ডাক্তারও জমে গিয়ে মারা যান। এ যেন ছোটবেলায় খেলা বরফ-পানির বাস্তব এবং ট্র্যাজিক সংস্করণ। এতটুকুই নয়, ঘটনাক্রমে পাপার দেহ গিয়ে পড়ে সমুদ্রে এবং সারা পৃথিবীর পৃষ্টে ও পেটে যত পানি আছে সব জমে গিয়ে বিশাল দূর্যোগ সৃষ্টি করে। বাকীটা জানতে হলে পড়তে হবে কার্ট ভনেগাট এর লেখা কল্পকাহিনী Cat's Cradle। আমাদের সৌভাগ্য যে আইস-নাইন কাল্পনিক, কিন্তু দূর্ভাগ্য এর জৈবিক প্রতিরূপ বাস্তব, যার…
বিস্তারিত পড়ুন ...

জেনেটিক সুপারহিরো

অনেক বছর আগে প্রথম যখন মিউট্যান্ট কথাটা প্রথম শুনি তখন... আমার মনেও নেই যে কোন ক্লাসে পড়ি। এক্স-ম্যান সিরিজের শুরুর দিকের কোন একটা সিনেমাতে শুনেছিলাম। এক্স ম্যান ছাড়াও অনেক গল্প সিনেমাতে সুপার হিরো তৈরির অন্যতম সরঞ্জাম এই মিউটেশন। তবে এখন পর্যন্ত আমরা বাস্তবে যতধরনের মিউটেশন সম্পর্কে জানি তার বেশিরভাগের ফলাফলই ক্ষতিকর। এখন যদি, কোন মানুষের মধ্যে এমন কিছু ক্ষতিকর মিউটেশন থাকা সত্বেও তিনি দিব্যি সুস্থ স্বাভাবিক দিন কাটাতে পারেন, তাহলে কি তাকে একজন সুপারহিরো বলা যায়? প্রায় পঞ্চাশ হাজার মানুষের জিন গবেষণা করে খুব অল্প সংখ্যক ব্যাক্তিকে পাওয়া গেছে যারা মারাত্নক রোগ সৃষ্টিকারী মিউটেশন ধারণকারী মিউট্যান্ট, কিন্তু তারা সুস্থ। এই সৌভাগ্যবান ১৩ জনের মধ্যে রয়েছে ৮ ধরনের জিনগত ব্যাধির মিউটেশন। সিস্টিক ফাইব্রোসিস, আটেলোস্টিওজেনেসিস সহ ৮ ধরনের ব্যাধি যেগুলোতে আক্রান্ত শিশু…
বিস্তারিত পড়ুন ...

জিনোম লেখার প্রজেক্ট

মানব জিনোম প্রজেক্ট শুরু করার রজত জয়ন্তী উদযাপনের সবচেয়ে চমকপ্রদ ঘোষনাটি আসলো মাত্র তিন দিন আগে। বিখ্যাত জার্নাল সায়েন্স এ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে বিজ্ঞানীরা এবার মানব জিনোম লেখার প্রজেক্টের ঘোষনা দিয়েছেন। নিউইয়র্ক ও হার্ভার্ডে বিজ্ঞানী, উদ্যোক্তা, আইনজীবি, প্রযুক্তিবিদ দের নিয়ে দুটি রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর তারা এই ঘোষনা দিয়েছেন। ২০০৩ সালে শেষ হওয়া মানব জিনোম প্রজেক্টের উদ্দেশ্য ছিলো আমাদের জিনোম পড়ে দেখা, সেটা সফল হয়েছে। নানা ক্ষেত্রে তার থেকে পাওয়া জ্ঞান গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখছে। কিন্তু তবুও বহু রহস্য রয়ে গেছে অভেদ্য। যদিও সিকোয়েন্স করা, সেই সিকোয়েন্স বিশ্লেষন করা এমনকি জিনোম সম্পাদনা করার প্রযুক্তিও এখন আমাদের হাতে চলে এসেছে কিন্তু কৃত্রিমভাবে ডিএনএ সিকোয়েন্স তৈরি করা এখন পর্যন্ত শুধু স্বল্প পরিসরেই সম্ভব হয়েছে। যে কারণে জৈবিক সিস্টেমকে পুরোপুরি বোঝা এবং আরো নিপুনভাবে কাজে…
বিস্তারিত পড়ুন ...

দুর্ঘটনার আশীর্বাদঃ সাভান্ট সিন্ড্রোম

আমাতো ডেরেক, ৩৯ বছর বয়সী সেলস ট্রেইনার ছুটি কাটাতে এসেছেন তার নিজ শহরে। এক সকালে তিনি তার দুই বন্ধু রিক এবং স্টার্ন- কে নিয়ে গেলেন এলাকার হেল্থ ক্লাবে। বন্ধুদের সাথে মজা করার এক পর্যায়ে ডেরেক সুইমিংপুলের পাটাতনে গিয়ে দাড়ালেন আর জাকুজিতে আরাম করতে থাকা রিক কে বললেন ফুটবলটা তার দিকে ছুড়ে দিতে, আর তখনই দুই বাহু প্রসারিত করে লাফ দিলেন। তার ইচ্ছা শুন্যে থাকা অবস্থায় বলটি ধরে ডিগবাজি খেয়ে পানিতে পড়া। কিন্তু হিসাবে ভুল হয়ে যায়, বল যায় ফসকে আর মাথাটা পড়ল কনক্রিটের মেঝেতে। তার মনে হল যেন মাথার উপর বোমা ফেটেছে। কান দিয়ে যে তরলের প্রবাহ অনুভব করলেন তার রং চিনতে আর ভুল হয়নি। বন্ধুরা ধরাধরি করে তাকে নিয়ে গেলেন হাসপাতালে। যাওয়ার পথে আর বার বার জ্ঞান হারালেন এবং…
বিস্তারিত পড়ুন ...

প্লাস্টিকভূক ব্যাক্টেরিয়া

বর্তমানে সারা পৃথিবীতে প্রতি বছর প্রায় ৩১১ মিলিওন টন প্লাস্টিক তৈরি হয় যার বিশাল একটি অংশ ব্যাবহৃত হয় প্যাকেজিং শিল্পে। এদের মধ্যে মাত্র ১৪% পুনরায় ব্যাবহার উপযোগী করা সম্ভব হয় আর বাকীটা থেকে যায় প্রকৃতিতে, প্লাস্টিক পঁচনশীল নয় বলে এদের অস্তিত্ব অন্যান্য অস্তিত্বকে ফেলে দেয় ঝুঁকির মধ্যে। বিশেষ করে সামুদ্রিক দূষনের অন্যতম হোতা হচ্ছে এই প্লাস্টিক। এই সমস্যা থেকে উত্তোরনের উপায় হিসেবে বর্তমানে পঁচনশীল প্লাস্টিক তৈরির জন্য যে গবেষনা চলছে তা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আশা দিতে সক্ষম হলেও আশু সমাধান এর থেকে সম্ভব নয়। তাহলে উপায়? একটা সময় আমরা মানুষেরা ছিলাম পুরোপুরি প্রকৃতির উপর নির্ভরশীল। আমাদের পূর্বপুরুষেরা দৈনন্দিন জীবনের নানা উপকরন প্রকৃতি থেকে সংগ্রহ করতেন। কালের পরিক্রমায় আমরা নির্ভরতা থেকে বেরিয়ে প্রকৃতিকে ব্যবহার করা শিখলাম। সেই ব্যবহার এখন প্রায় নিয়ন্ত্রনের পর্যায়ে…
বিস্তারিত পড়ুন ...

অতিকায় ভাইরাসের গল্প

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হলেও তামাক একটি অর্থকরী ফসল। এই ফসল যদি এমন কোন রোগে আক্রান্ত হয় যার ফলে কৃষকেরা চাষ করাই ছেড়ে দিচ্ছেন, তাহলে তামাক উৎপাদনকারী একটি দেশের জন্য চিন্তার উদ্রেক হওয়া দোষের কিছু না। ১৮৭৯ সালে নেদার্ল্যান্ডের এগ্রিকালচারাল এক্সপেরিমেন্টাল স্টেশনের ডিরেক্টর এডলফ মেয়ারের নজরে আনা হয় এমন এক অদ্ভুত রোগ "টোবাকো মোজাইক ডিজিজ"। তিনি বহুদিন এটা নিয়ে কাজ করলেন, কিন্তু কিসের জন্য যে এই রোগটা হচ্ছে সেটা ঠিক বের করতে পারলেননা। তিনি বললেন যে, আক্রান্ত গাছের রস ফিল্টার পেপারের মাধ্যমে পরিশোধিত করা হলে প্রাথমিক ভাবে সংক্রামক থাকলেও বেশ কয়েকবার ফিল্টার করার পর করার রসটা আর সংক্রমক থাকছেনা সুতরাং কোন অজানা ব্যাক্টেরিয়ার কারনে এই রোগ হচ্ছে। ১৮৯২ সালের দিকে রাশিয়ান উদ্ভিদ বিজ্ঞানী দিমিত্রি আইভানভস্কি ওই একই রোগে আক্রন্ত গাছের…
বিস্তারিত পড়ুন ...

ক্যান্সার কথন

খ্রিস্টের জন্মের ৪০০ বছর আগে হিপোক্রেটস বলেছিলেন আমাদের দের চার ধরনের তরলে গঠিত। এই চার ধরনের তরলের মধ্যে সব সময় ভারসাম্য বজায় থাকে, যা নষ্ট হলেই নানা বিধ ব্যামোর আবির্ভাব হয়। এর মধ্যে ব্ল্যাক বাইল নামক তরলের পরিমান বেড়ে গেলে যেটা হয় তাকে কার্সিনোস এবং কার্সিনোমা বলে বলে ডাকতেন তিনি, যার উৎপত্তি গ্রীক 'Karkinos' থেকে, এর অর্থ হচ্ছে কাঁকড়া আক্রান্ত টিস্যু হতে চারপাশে রক্তনালীগুলোর ছড়িয়ে পড়া দেখতে অনেকটা কাঁকড়ার থাবার মত, তাই এই নামকরন। ধীরে ধীরে এর ক্যান্সার নামটি প্রচলিত হয়। এখন ২০১৫ সালে এসে এত এত বছরের গবেষনা, এত এত মলাট বদ্ধ প্রকাশনা, এত এত পরীক্ষা নীরিক্ষা, এত এত বস্তা টাকা ঢালার পরেও কেন ক্যান্সারের কোন প্রতিষ্ঠিত নিরাময় নেই? কারন ক্যান্সারকে কোন সূত্রে বাধা সম্ভব নয়। সকাল বিকাল আমরা…
বিস্তারিত পড়ুন ...

জীববিজ্ঞানে গণিতঃ এক্স, ওয়াই, জেড এবং ডবল ইউ

আমাদের দেহের গাঠনিক ও কার্যকরী একক হলো কোষ। এই কোষের মধ্যে রয়েছে নিউক্লিয়াস, নিউক্লিয়াসের মধ্যে রয়েছে ক্রোমোজোম। ধরা যাক আমাদের নিউক্লিয়াস হলো কোষের হেড অফিস। এখানে নানান তথ্য ফাইলের মধ্যে রাখা হয়েছে। ফাইলগুলো যদি জিন হয়, তাহলে কেবিনেটগুলো হলো ক্রোমোজোম। বিভিন্ন জীবের কোষীয় হেড অফিসে কেবিনেট অর্থাৎ ক্রোমোজোম সংখ্যা বিভিন্ন। গরুর ৬০, কুকুরের ৭৮ এবং মানুষের ৪৬ টা ক্রোমোজোম আছে। Ophiglossum নামের এক ফার্ন গাছের রয়েছে সবচেয়ে বেশি ক্রোমোজোম। কত ভাবেন তো? একশ? দেড়শ? জি না, ১২৬২! একটু আগেই যে বললাম মানুষের ৪৬ টা ক্রোমোজোম, এর মধ্যে ৪৪ টা হলো অটোজোম। এদের বহন করা তথ্যে জীবের লিংগ নির্ধারন সম্পর্কিত কোন তথ্য নাই। বাকী ২ টো হলো সেক্স ক্রোমোজোম। এরা কি অবস্থায় আছে তার ওপর নির্ভর করে এদের বাহক ছেলে হবে…
বিস্তারিত পড়ুন ...