কেমন হতে পারে আমাদের ভবিষ্যত প্রযুক্তি।আই.বি.এম এর গবেষকরা সাধারনত প্রতি বছর ভবিষ্যত প্রযুক্তি গুলোনিয়ে ভবিষ্যতবাণী করে থাকেন।তবে তারা নিকট ভবিষ্যত নিয়েই ভবিষ্যতবাণী করেন।তারা এমন পাঁচটি ভবিষ্যত প্রযুক্তির কথা বলে থাকেন যেগুলো পাঁচ বছরের মধ্যেই আমাদের জীবন সম্পূর্ণ বদলে দিবে।এটা আই.বি.এম. ৫*৫ আর্টিকেল নামেও পরিচিত।এবারের পাঁচটি ভবিষ্যতবাণীর মধ্যে একটি হল,আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে আমরা ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে বাজার করতে পারব, পন্যর গঠনটা বুঝতে পারব,পন্যটি ধরতে পারব।অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে এটা কিভাবে সম্ভব?আসলে পন্যটির গঠন অনুভূতি পাওয়া মানেই পন্যটি নিজ হাতে ধরা হবেনা।আপানাকে শুধু ভায়ব্রেশন এর মাধ্যমে আপনার ফোনের স্ক্রিন বস্তুটির অনুভূতি দিবে। মনে করুন আপনি পন্যটি নিজ হাতে ধরে একটি সিল্কের জামা কিনতে চাচ্ছেন।দোকানী জামাটার ছবি তুলে আপলোড করবে।তারপর আপনার ফোন ছবিটি একটি ডাটাবেসের সাথে মিলিয়ে দেখবে।ডাটাবেসটি হবে এমন একটি ডাটাবেস যেখানে সবরকম বস্তুর জন্য আলাদা আলাদা ভায়ব্রেশন জমা করা থাকবে।সে সিল্কের ছবির জন্য সিল্কের ভায়ব্রেশন আপনার ফোনকে জানাবে।অতঃপর আপনার ফোনের স্ক্রিন আপনার আঙ্গুলে সে ভায়ব্রেশন দিবে,আর মস্তিস্ক ধরে নিবে আপনি আঙ্গুল দিয়ে সিল্ক ধরছেন।ব্যবহারের সাথে সাথে যখন মানুষ ডাটাবেসটি বুঝতে থাকবে তখন এটি আরও সমৃদ্ধ হতে থাকবে।যেমন একসময় হয়ত সিল্কের বিভিন্ন প্রকারের জন্য আলাদা আলাদা ভায়ব্রেশন থাকবে।এর মানে আপনি শুধু ঘরে বসে কোনটি কোন প্রকারের বস্তু,এটি অন্য একই জাতীয় বস্তু থেকে ভালোনা খারাপ,কোন সবজি ভাল না খারাপ,ফল পাঁকা না কাচা সব বুঝতে পারবেন।এই ভবিষ্যত প্রযুক্তিটি আসলে তা যে শুধু কেনা বেচার জন্যই ব্যবহার হবে তা কিন্তু নয়।যেমন এটা কৃষী ক্ষেত্রেও ব্যবহার হতে পারে।একজন কৃষক নিজ ফসলের গুনাগুন এর মাধ্যমে বুঝতে পারেবেন।এটা চিকিতসা ক্ষেত্রেও ব্যবহার হতে পারে।একজন রোগি নিজের আঘাতের ছবি ডাক্তারকে পাঠালে তিনি নিজে আঘাতটার অনুভূতি নিয়ে চিকিতসা করতে পারবেন।মানে এরকম একটি আবিস্কার বাস্তবিকভাবেই আমাদের জীবন সম্পূর্ণভাবে পাল্টে দিবে।
আর্টিকেলটি নেয়া হয়েছে এখান

আমরা নিয়মিত বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জনপ্রিয়-বিজ্ঞান ও গবেষণা-ভিত্তিক লেখালেখি করি বিজ্ঞান ব্লগে। এছাড়া আমাদের লেখকেরা বিভিন্ন সময় বিজ্ঞান-বিষয়ক বইও প্রকাশ করে থাকেন। ই-মেইলের মাধ্যমে এসব খবরা-খবর পেতে নিচের ফর্মটি ব্যবহার করুন। ।

মন্তব্যসমূহ

  1. আরাফাত রহমান Reply

    লেখাটা হঠাৎ করে শেষ হয়ে গেছে। এবং বেশ ছোট হয়ে গেছে। রেফারেন্স দিয়েছেন, গুড। ছবি থাকলে হয়তো ভালো হতো। আসলে আমরা বিজ্ঞান ব্লগে তথ্যপ্রযুক্তি, মোবাইল এন্ড্রয়েড ইত্যাদি বিষয়ে ততটা আগ্রহী না। বিজ্ঞান আর প্রযুক্তি যে ভিন্ন বিষয় তা তো নিশ্চয়ই জানেনই। ধরেন আপনি যে টেকনোলজি নিয়ে লিখেছেন, সে টেকনোলজি আসলে কিভাবে কাজ করে এটা একটা ইন্টারেস্টিঙ লেখা হতে পারে। আর এখানে গিয়ে আপনার পরিচয় যুক্ত করুন http://www.bigganblog.com/wp-admin/profile.php

আপনার মতামত

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.