আলেকজান্দ্রিয়ার সর্বশেষ নামকরা যে গণিতবিদ ছিলেন তিনি একজন নারী! বেশ একটা অবাক করা তথ্য! কারণ যে সময়টার কথা বলছি তখন নারী শিক্ষার কল্পনা করার ব্যাপারটা সমাজ আর শাসনতন্ত্রের সাথে যায় না।

হাইপেশিয়া

নাম হাইপেশিয়া। জন্ম আনুমানিক ৩৭০খ্রিস্টাব্দ। বাবার নাম থিওন। হাইপেশিয়ার মায়ের কথা জানা যায় না। ইতিহাস হাইপেশিয়াকে হাইপেশিয়া হিসেবে গড়ে তুলতে তাঁর বাবার অবদানের জন্য থিওনকে ধরে রাখতে পেরেছে। হাইপেশিয়াকে বলা হয় প্রথম নারী গণিতবিদ যার ব্যাপারে ইতিহাসবিদগণ গভীরভাবে জানতে পেরেছেন।

হাইপেশিয়ার বাবা ছিলেন আলেকজান্দ্রিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের অধ্যাপক এবং অবশ্যই একজন মুক্তমনা ব্যক্তিত্ব। পরবর্তীতে তিনি আলেকজান্দ্রিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ পদে আসীন হন।

হাইপেশিয়া তাঁর বাবার ছায়ায় বেড়ে উঠেছিলেন একটা শিক্ষাসুলভ, প্রশ্নাতুর, কৌতূহলউদ্দীপক আর আবিষ্কারমুখর আবহাওয়ায়। সেই আবহাওয়ায় পড়ে তাঁর মাঝে জ্ঞানবিজ্ঞান, দর্শনচিন্তা, মুক্তবুদ্ধির চর্চাগুলো গড়ে উঠেছিল। চোখের সামনে ধরা দিতে লাগল যুক্তির অপার সৌন্দর্যের জগত। গণিত আর জ্যোতির্বিজ্ঞানকে ধারণ করে নিয়েছিলেন হাইপেশিয়া তার মননে। আলেকজান্দ্রিয়ার জাদুঘর আর লাইব্রেরী হয়ে উঠেছিল তাঁর পাঠশালা! হাইপেশিয়া হয়ে উঠেছিলেন তাঁর বাবার জীবনের এক নম্বর স্টুডেন্ট! জ্ঞানে ও যশে তিনি ছাপিয়ে গিয়েছিলেন তাঁর বাবাকেও! যে কারণে হাইপেশিয়া হলেন ইতিহাসে একজন নারী গণিতবিদ আর থিওন হাইপেশিয়ার বাবা হিসেবে পরিচিত। 🙂 মানে, যতটা না বড় ‘বাবার মেয়ে’ তার চেয়ে বড় ‘মেয়ের বাবা’ পরিচয় ! 🙂 কিন্তু এর পেছনের কারিগরটাও যে তাঁর বাবা- সেটা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই।

থিওন সাহেব বাবা হিসেবে তাঁকে শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে কোন বাছবিচার করেন নি। শারীরিক, মানসিক, গ্রন্থগত সব বিদ্যাই মেয়েকে রপ্ত করিয়েছেন কষিয়ে। সাঁতার, অশ্বচালনা , পর্বতারোহণ এবং এরকম প্রতিটা দিনের একটা নির্ধারিত সময় তাঁর এ ধরনের শারীরিক শ্রমের জন্য বরাদ্দ ছিল। মেয়ে হিসেবে জন্মালেও বাবা তাঁর মেয়েকে মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়াসে ছিলেন। খুবই স্পষ্ট ব্যাপার! হাইপেশিয়াও সাগ্রহে লকলকিয়ে বেড়ে উঠেছেন  পিতার শিক্ষাস্নেহে।

হাইপেশিয়া এপোলোনিয়াসের কনিক এর উপর একটি বই লিখেন। তিনি অধিবৃত্ত , পরাবৃত্ত আর উপবৃত্তের আরো সহজে বোধগম্য উপস্থাপনা করেন। এপোলোনিয়াস ছিলেন আরেক খ্যাতিমান আলেকজান্দ্রিয়ান তাঁর চেয়েও পাঁচশ বছর আগের সময়কার। ডায়োফেন্টাসের এরিথমেটিকার উপর লেখা হাইপেশিয়ার ব্যাখ্যামূলক গ্রন্থটির- টিকে থাকার সপক্ষে যথেষ্ঠ প্রমাণ পাওয়া যায়। ডায়োফেন্টাসের বীজগণিত মূলত একঘাত ও দ্বিঘাত সমীকরণ সংক্রান্ত সমস্যার উপর আলোকপাত করে; যেখানে হাইপেশিয়া বেশ কিছু বিকল্প সমাধান এবং নতুন সমস্যাবলীর অবতারণা করেন।

তাঁর আরও একটি মূল রচনা On the Astronomical Canon of Diophantus . এছাড়া টলেমির জ্যোতির্বিদ্যা বিষয়ক কাজের ওপর হাইপেশিয়ার আলোচনা গ্রন্থ ছিল । টলেমীর Almagest বই উপর লেখা তাঁর পিতার বিশ্লেষণধর্মী একটি গ্রন্থ লিখেছিলেন থিওন। হাইপেশিয়া সেটির সম্পাদনা করেন, যখন তার বয়স মাত্র ১৯ ! Almagest হচ্ছে তের খন্ডের সেই বিশাল গ্রন্থ যাতে টলেমী তাঁর সমসাময়িক যাবতীয় গণিত ও মহাকাশ জ্ঞান সংকলিত করেন। আরবীয় পণ্ডিতরা এই বইটির নামকরণ করেন Al-kitabul-mijisti বা মহান গ্রন্থ।

রোম, এথেন্স এবং আরো বড় বড় শহর থেকে আলেকজান্দ্রিয়াতে ছাত্ররা আসত তাঁর গণিত ও দর্শনশাস্ত্রের বক্তৃতা শুনতে! সমাজের মাঝে গণিত আর জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চাটা মহান কিছু। আর এই প্রাচীন সময়টাতে তা যখন একজন নারীর মাঝে পাওয়া গেল তা নিশ্চয়ই আরো বিরাট কিছু! তিনি একটি হাইড্রোমিটার আবিষ্কার করেছিলেন যা দিয়ে তরলের আপেক্ষিক গুরুত্ব মাপা যেত। Astrolabe নামে আরেকটি যন্ত্র ব্যবহৃত হত সূর্য ও নক্ষত্রের অবস্থান নির্ণয়ে এবং রাশিচক্রের আরোহণকারী চিহ্ন হিসেব করতে। হাইপেশিয়া যন্ত্রটিকে এতই সূক্ষ্ম করেন যে এটি গোলীয় জোতির্বিদ্যার যথার্থ সমাধান দিত। Astrolabe তৈরিতে তাঁর এক ছাত্র তাঁকে সহায়তা করেন।

আকাশের জ্যোতিষ্কের অবস্থান মাপতে ব্যবহৃত হত।

Astrolabe: আকাশের জ্যোতিষ্কের অবস্থান মাপতে ব্যবহৃত হত।

আমরা যা জানি হাইপেশিয়ার ব্যাপারে- তা বেশ কম। যা জানি তার গণিত সম্পর্কে- তা আরো কম! হাইপেশিয়া সম্পর্কে সবচেয়ে তীব্র স্মৃতিভুক্ত ঘটনা তাঁর মৃত্যু এবং মৃত্যুর পথে তাঁর মুহুর্মুহ পীড়াদায়ক অত্যাচার। ধর্মকলহের ছোবল তাঁকে শেষ করেছিল। তত্‍কালীন খ্রিস্টান শাসিত সমাজে হাইপেশিয়া ছিলেন প্যাগান- আরেক প্রাচীন ধর্ম প্যাগানিজম এর ধারক।

হাইপেশিয়ার নিও-প্লেটোনিক মতবাদে বিশ্বাস, খ্রীষ্টান শাসকদের শঙ্কার কারণ ছিল। তাঁরা হাইপেশিয়ার দর্শনকে মনে করতেন চার্চদ্রোহী, এবং ৪১২ খ্রীষ্টাব্দে সিরিল যখন আলেকজান্দ্রিয়ার প্যাট্রিয়ার্ক নিযুক্ত হন, তখন তিনি পরিকল্পিতভাবে এসব চার্চদ্রোহীদেরকে দমন শুরু করেন। হাইপেশিয়ার প্রভাবকে সিরিল মনে করতেন চার্চের জন্য বড় হুমকি । তাঁর প্রতি মানুষের সম্মান, অনুগামিতা নিয়ে তাদের মনে সংকীর্ণতা রাজনীতি আর ধর্মের যাঁতাকলে বিধ্বংসী করে তোলে। জগতের বড় বড় নৃশংস ঘটনাগুলো ঘটেছে ধর্মের কারণে! যতটা আমরা এগিয়েছি, তার অনেকখানি পিছিয়েছি কেবলমাত্র এই ধর্মের দোষে!

ধর্ম ব্রুনোর প্রাণ নিল, কোপারনিকাসের সংশয় জাগাল, গ্যালিলিও এর সময় খেলো, সম্মান খেলো! আর খেলো যুগ যুগ ধরে হাজার মানব মুন্ডু!

হাইপেশিয়াকে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

 

৪১৫ খ্রীষ্টাব্দে মার্চের এক সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবার পথে একদল সন্ন্যাসীর হাতে আক্রান্ত হন হাইপেশিয়া। তারা তাঁকে টেনে হিঁচড়ে হেঁচড়ে নিয়ে যায় চার্চ সিজারিয়ামে, ঝিনুকের খোল দিয়ে তাঁর দেহের চামড়া চেঁছে ফেলে। টুকরো টুকরো করে কেটে বিভক্ত করে ফেলে দেহ। এখানেই থেমে থাকে নি তাদের পাশবিকতা। তাঁর মৃত দেহটুকরা পুড়িয়ে ছাই করে উড়িয়ে দেয়া হয়! যেন কতটা বিষময় ছিল তাঁর বেঁচে থাকা তাদের কাছে!

আরো একটি অবাক করা বিষয় হল এমন একটা নৃশংস হত্যার কোন বিচার হয় নি! হাইপেশিয়ার জাগতিক অস্তিত্ব ভস্ম হয়ে উড়ে গেল , সাথে উড়ে গেল আলেকজান্দ্রিয়ার গর্ব, মাথা উঁচু করে আর জ্ঞানের শাসনের দিন আসেনি আলেকজান্দ্রিয়ার! এখন সব ইতিহাস! 🙁

আমরা নিয়মিত বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জনপ্রিয়-বিজ্ঞান ও গবেষণা-ভিত্তিক লেখালেখি করি বিজ্ঞান ব্লগে। এছাড়া আমাদের লেখকেরা বিভিন্ন সময় বিজ্ঞান-বিষয়ক বইও প্রকাশ করে থাকেন। ই-মেইলের মাধ্যমে এসব খবরা-খবর পেতে নিচের ফর্মটি ব্যবহার করুন। ।

লিখেছেন শাহরিয়ার কবির পাভেল

গণিত ও বিজ্ঞানের জন্য এক বুক ভালোবাসা।

শাহরিয়ার কবির পাভেল বিজ্ঞান ব্লগে সর্বমোট 3 টি পোস্ট করেছেন।

লেখকের সবগুলো পোস্ট দেখুন

মন্তব্যসমূহ

  1. আরাফাত রহমান Reply

    এটা সম্ভবত হাইপেশিয়ার উপর প্রথম লেখা বিজ্ঞান ব্লগে।
    বিজ্ঞান ব্লগে স্বাগতম! হ্যাপী ব্লগিং।

আপনার মতামত

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.