নতুন লেখক নিবন্ধন

পাঠসংখ্যা: 👁️ 274

বিজ্ঞান নিয়ে লিখতে চান, এজন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ!

নতুন অবদানকারী হিসেবে নিবন্ধন করার জন্য নিচের ফর্মটি পূরণ করুন। ফর্মে আপনার সক্রিয় ইমেইল, ফেসবুক প্রোফাইল লিঙ্ক (বা আপনার ব্যবহৃত অন্য সামাজিক মাধ্যমের লিঙ্ক) দিবেন যেন আপনার সাথে আমরা যোগাযোগ করতে পারি। যেসব বিষয়ে বা বিভাগে আপনি লেখা প্রকাশ করতে ইচ্ছুক, সেগুলো ফর্মে উল্লেখ করবেন।



ফর্ম পূরণের পাশাপাশি আপনার লেখাটি এই ইমেইলে পাঠিয়ে দিন: [email protected]। আপনার লেখাটি গুগল ডকে সম্পাদনার অনুমতি দিয়ে পাঠালে ভালো হয়, সেক্ষেত্রে সম্পাদক সরাসরি ওই গুগল ডকে মন্তব্য ও ফিডব্যাক দিতে পারবেন। কিভাবে লেখা সাজাবেন তা নিয়ে বিস্তারিত দেখুন এখানে: বিজ্ঞান লেখার ফিল্ড গাইডলাইন

আপনার লেখার পান্ডুলিপি পাওয়ার পর উপরের ফর্মে নিবন্ধনের তথ্য যাচাই করে সম্পাদক কর্তৃক আপনাকে ইমেইল করা হবে। ইমেইলে পাওয়া নির্দেশনা অনুসরণ করে আপনি বিজ্ঞান ব্লগে একজন অবদানকারী হিসেবে যুক্ত হতে পারবেন। পাশাপাশি ফেসবুকে লেখকদের আভ্যন্তরীণ গ্রুপেও আপনাকে স্বাগতম।

অবদানকারী হিসেবে আপনার দেওয়া লেখা সম্পাদক দ্বারা অনুমোদিত ও প্রয়োজনে পরিমার্জিত হয়ে প্রকাশিত হবে। একটি লেখা প্রকাশের পর আপনাকে আমাদের লেখক গ্রুপে যুক্ত করা হবে। তিনটি লেখা প্রকাশের পর আপনি ওয়েবসাইটে স্বাধীন লেখক হতে পারবেন, অর্থাৎ কোন সম্পাদকীয় অনুমতি ও পরিমার্জনার মধ্য দিয়ে যেতে হবে না।

বিজ্ঞান-লেখকের একটা প্রধান ভূমিকা হলো বিজ্ঞানীর বিমূর্ত জগত আর সাধারণ মানুষের রোজকার জীবনের মধ্যে একটা যোগসূত্র রচনা করা। এই লেখক হতে পারেন গবেষণারত বিজ্ঞানী যিনি নিজের গবেষণার বিষয়ে বা তার নিজের ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের অগ্রগতির বিষয়ে সাধারণ মানুষকে জানাতে চান। আবার লেখক হতে পারেন একজন সাংবাদিক যিনি বিজ্ঞানীদের কাজের ফল বা তার তাৎপর্য সম্বন্ধে জনসাধারণকে অবহিত করতে চাইছেন। একালের একজন বহুপ্রজ বিজ্ঞান-লেখক আইজাক অ্যাসিমভ (১৯২০-৯২) নানা বিষয়ে চারশ’র ওপর বই লিখেছেন। ১৯৬৯ সালে তার শততম গ্রন্থ প্রকাশনা উপলক্ষে তিনি বলেছিলেন, “আমি আমার লেখায় গভীর পান্ডিত্য দেখাবার চেষ্টা করি না। … আমার কাজ হলো তরজমা করা। কোন বিষয়ে ডজনখানেক নীরস বই পড়ে আমি সে বিষয় নিয়ে একটি সরস বই লিখে ফেলি।”

— আব্দুল্লাহ আল-মুতী
rewrite edit text on a typewriter
Photo by Suzy Hazelwood on Pexels.com