জেনেটিক্স

পাঠসংখ্যা: 👁️ 382

২০২১ সালের অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হতে যাচ্ছে আমার এই বইটি।

বইটি কি নিয়ে? কি থাকছে?

আমরা কেন মা-বাবার মতো দেখতে? মেন্ডেলের সূত্র কেন হুমকীর মধ্যে পড়ে গিয়েছিলো? ওয়াটসন-ক্রিক কি সত্যিই রোজালিন্ডের উপাত্ত চুরি করেছিলেন? মিউটেশন কি আসলেই এলোমেলো? ডিজাইনার-নবজাতকের বদলে ভ্রুণ নির্বাচন করা সহজ কেন? ক্রিসপার শিশুরা কি ভবিষ্যত মানবজাতি বদলে দেবে? 

প্রশ্নগুলো বংশগতির। শুধু জেনেটিক্স বিষয়ে উচ্চশিক্ষার পড়ুয়ারাদের মনে এই প্রশ্নগুলো আসে এমন নয়। স্কুল-কলেজ থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায় কিংবা যারা বিভিন্ন পেশাজীবি সবার মাঝেই এ জিজ্ঞাসাগুলো আসে। কিন্তু বংশগতি বোঝার জন্য বাংলাতে সহজলভ্য তেমন কোন বইপত্র নেই। এমনকি অনেক সময় বিশ্ববিদ্যালয়ে জীববিজ্ঞান সম্পর্কিত বিভাগে জেনেটিক্স কোর্সেও বংশগতির বিভিন্ন ধারণা বুঝতে খাবি খেতে হয়। ঠিক এই সব পর্যায়ের কৌতুহলী পাঠকদের কথা মাথায় রেখে এই বইটি লেখা। এমন একটি বই লিখতে চেয়েছি যা বংশগতির মৌলিক কিছু ধারণার সাথে সকল পর্যায়ের পাঠকদের পরিচয় করে দেবে।

বইটিতে থাকছে বংশগতির অ-আ-ক-খ। তারপর বংশগতির গবেষণার ইতিহাস আর সেসব গবেষণার কিছু পরিপেক্ষিত যা না জানলেই নয়। রয়েছে আণবিক বংশগতি ও জেনোমিক্সের কিছু ধারণার সাথে পরিচয়, মিউটেশন, এপিজেনেটিক্স, এমনকি সাম্প্রতিক ক্রিসপার-প্রযুক্তি সম্পর্কিত অগ্রগতি যা আমাদের সমাজে বিভিন্ন নৈতিক প্রশ্ন তৈরি করেছে।

সবার জন্য বংশগতিবিদ্যা

বংশগতির জ্ঞান কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। অন্তর্জালে প্রচুর ভালো ও নির্ভরযোগ্য তথ্যসূত্র আছে এ বিষয়ে। তাই আমার বইয়ের বিভিন্ন অংশ ধাপে ধাপে আমি বিজ্ঞান ব্লগে যুক্ত করে দেবো। যে যে অংশ যুক্ত করে দিচ্ছি, তার ধারাবাহিক সূচিপত্র নিচেই দেখুন।

সূচিপত্র

অধ্যায়: বংশগতিবিদ্যার উত্থান

[জেনেটিক্স: বংশগতিবিদ্যার সহজপাঠ বইটি একুশে বইমেলা, ২০২১ এ প্রকাশিত হবে। খোঁজখবর জানতে ফেসবুক ফ্যানপেজ অনুসরণ করুন, এ বিষয়ে আগ্রহী হলে যুক্ত হোন জেনেটিক্স: সবার জন্য বংশগতিবিদ্যা ফোরামে।]