জীবনের উদ্ভব: প্যান্সপারমিয়া তত্ত্ব পরিচিতি

পৃথিবীতে প্রাণের উদ্ভব হলো কি করে এই প্রশ্নটা যুগের পর যুগ ধরে মানুষকে আলোড়িত করে আসছে। বিভিন্ন লোকসংস্কৃতি, ধর্ম ও পুরাণ এই প্রশ্নের উত্তর দিতে চেয়েছে নানা ভাবে। বিজ্ঞানও এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে বেশ কিছু তত্ত্ব দাঁড়া করিয়েছে, যাদের মধ্যে কোন কোনটা আবার কল্পবিজ্ঞানের মতোই শোনাবে। বিজ্ঞান ও কল্পবিজ্ঞানের সীমারেখায় দাঁড়িয়ে থাকা এমন একটি তত্ত্ব হলো প্যান্সপারমিয়া। প্যান্সপারমিয়ার মূল বক্তব্য হলো প্রাণের উদ্ভব পৃথিবীতে হয় নি। মহাবিশ্বের অন্য কোথাও প্রাণের উদ্ভব হয়েছে। উল্কা, ধূমকেতু…
বিস্তারিত পড়ুন ...

সিলিকন ভিত্তিক জীবনঃ বাস্তবতা আর সম্ভাবনা

সিলিকন ভিত্তিক কাল্পনিক  প্রাণ প্রাণ! এক অদ্ভুত বিস্ময় আমাদের পৃথিবীর জন্য। এই প্রাণ থাকাতেই আমরা মানুষ আমরা যর বস্তুর থেকে আলাদা। আমাদের হাসি-কান্না আনন্দ বিস্ময় সব কিছুই নিরধারন করে যেন এই প্রাণ আর সেটার স্পন্দন। এমনিতে প্রাণ বলতে আমরা মূলত বুঝি বাম হাতি অ্যামিনো এসিড আর প্রোটিন এর সমন্বয়ে গঠিত এক অজানা কুহেলিকা কে। যদিওবা এই প্রাণ এর রহস্য দিয়ে ঘেরা ডিএনএ আমরা বহন করে নিয়ে চলেছি প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। চার ধরন এর ক্ষার আর…
বিস্তারিত পড়ুন ...

জীবনের অন্ধকার অঞ্চল – প্রাণের নতুন ডোমেইন?

পদার্থবিদ্যার এক রহস্যজনক বিষয় হলো ডার্ক ম্যাটার। মহাবিশ্ব সৃষ্টির সময় হিসেব মতো যে বস্তু ও শক্তি তৈরি হওয়ার কথা, বিজ্ঞানীরা তার মাত্র ৪%-র হিসেব পেয়েছেন। বাকি ৯৬% বস্তু-শক্তির অস্তিত্ব এখনো বোঝা যাচ্ছে না। এদেরকে বলা হয় ডার্ক ম্যাটার ও ডার্ক এনার্জি নামে। মহাবিশ্বের যেমন ৯৬% জিনিসকে আমরা জানি না। ঠিক তেমনই ১% অণুজীবকে আমরা কালচার মিডিয়াতে চাষ করতে পারি। বাকি ৯৯% অণুজীব কালচার মিডিয়ামে দেখা দেয় না। তাই এদেরকে জীববিজ্ঞানের "ডার্ক ম্যাটার” বলে ডাকা হয়।…
বিস্তারিত পড়ুন ...