উন্নত স্মৃতিশক্তি প্রাপ্তি ও হতাশা দুর করার সহজ ও সুলভ উপায়

পাঠসংখ্যা: 👁️ 1,394

চমৎকার স্মৃতিশক্তি আমাদের সকলেরই কাম্য, এর জন্য আমরা কত আয়োজনই না করে থাকি, কিন্তু এতসব আয়োজনে হয়ত একটি পরিচিত নিত্যসঙ্গীর কথাই ভুলে যায়আবার কর্মব্যাস্ত ও ক্লান্তিকর একটা দিন অতিবাহিত করার পর আমাদের দেহ মন দুইয়েরই একটু আরাম প্রয়োজন। কারন আগামীদিন আর একটা নতুন কর্মস্পৃহা নিয়ে জীবন যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে হবে। কিন্তু কোন জিনিসটা যোগাবে এই নতুন কর্মস্পৃহা এবং শানিত করবে আমাদের স্মৃতিশক্তি ?

উত্তর হল ঘুম ! একটা ভাল ঘুম।

আসুন তাহলে জেনে নেই, ঘুম আমাদের জীবন টাকে কিভাবে স্বাচ্ছন্দময় করে তোলে।

  • স্মৃতিশক্তি উন্নয়ন

জাগ্রত অবস্হায় যে কাজ আপনি অনুশীলন বা শিখতে চেষ্টা করেন, ঘুমের সময় তা আপনার স্মৃতি তে ভাল ভাবে গেথে যায় এবং এই প্রক্রিয়া কে বলা হয় দৃঢ়করন (Consolidation) । “আপনি যদি কিছু শেখার চেষ্টা করছেন তা শারিরীক বা মানুষিক যেটাই হোক না কেন, তা শিখেন অনুশীলনের মাধ্যমে, ঘুমের সময় এমন কিছু ঘটে যা আপনাকে ওই অনুশীলিত কাজ গুলো শিখতে সাহায্য করে” কথাগুলো বলেছেন এন.ওয়াই.ইউ (NYU) লাংগুন মেডিকাল সেন্টারের সহযোগী অধ্যাপক ডঃ রাপোপার্ট। যেমন ধরুন নতুন কোন ভাষা শিখছেন বা খেলা, তা আপনি শুধু জেগে থেকেই শিখছেন না, ঘুমন্ত অবস্হায়ও শিখছেন।

  • হতাশা দুরীকরন

হতাশা এবং উদ্বীগ্নতা আজ যেন আমাদের নিত্য সঙ্গী যা আমাদের কর্মক্ষমতা কমিয়ে দিচ্ছে, রাতের ভাল ঘুম একজন হতাশ মানুষকে তার হতাশা কমাতে সাহায্য করে। এতে আপনার আবেগের উপরও নিয়ন্ত্রন বাড়ে। কথাগুলো আমার নয় বলেছেন নিউওয়ার্কসিটির লুকাস রোজভেল্ট হসপিটাল সেন্টারের স্লীপ মেডিসিন (Sleep Medicine) এবং ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটের পরিচালক ডাঃ রেইমন্ড জেন। আপনি সারা সপ্তাহ কর্মব্যাস্ত থাকার কারনে যদি পরিমিত ঘুম না হয়ে থাকে এবং মনে করেন সপ্তাহ শেষে ঘুমিয়ে পুষিয়ে নিবেন তা সম্ভব না, আপনাকে একটা ভারসম্য বজায় রাখতে হবে এটা ডাঃ রাপোপার্ট এর মতামত।

তাহলে আজ রাতের ঘুমটা যেন ভাল হয় সে কামনায় রইল। পরবর্তী পোষ্টে চেষ্টা করব কিভাবে ভাল ঘুম হবে তার উপায় গুলো জানাতে, সে পর্যন্ত ভাল থাকুন।