বাংলাদেশের সমুদ্র সৈকতে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণের স্বরূপ

Share
   

সম্প্রতি বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা পরিচালনা করেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য ও সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বেলাল হোসেন। ইতিমধ্যে তার গবেষণার ফলাফল ‘Abundance and characteristics of microplastics in sediments from the world’s longest natural beach, Cox’s Bazar, Bangladesh’ শিরোনামে আন্তর্জাতিক জার্নাল মেরিন পলুশন বুলেটিন এ প্রকাশিত হয়েছে। 

বিভিন্ন ধরনের মাইক্রোপ্লাস্টিক। A-B মাইক্রোপ্লাস্টিকের তন্তু, C ফ্র্যাগমেন্ট, D কণা, E মাইক্রোবিড, F ফোম, G ফিল্ম ও  H শিট। ছবি গবেষণাপত্র থেকে সংগৃতীত। সূত্র: মূল গবেষণাপত্র।

বঙ্গোপসাগর উপকূলে অবস্থিত কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত পৃথিবীর দীর্ঘতম প্রাকৃতিক বালুময় সৈকত, পাহাড়-টিলা সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের স্বর্গভূমি। এই নগরটি বাংলাদেশের পর্যটন রাজধানী হিসাবে পরিচিত। এছাড়াও বৈচিত্রময় জীববৈচিত্র্য এবং খনিজ পদার্থের জন্য এটি সম্প্রতি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ভ্রমনপিপাসুদের প্রানকেন্দ্রে হিসাবে পরিণত হয়েছে। প্রতিবছর নভেম্বর থেকে মার্চ মাসে দেশ-বিদেশ থেকে প্রায় বিশ লক্ষ পর্যটক এই সৈকতটি দেখতে আসেন। ফলে সমুদ্র সৈকতের হোটেল, রেস্তোঁরা এবং পর্যটকদের অসচেতনতায় প্রচুর পরিমাণ প্লাস্টিকের বর্জ্য তৈরি হয় যা প্রায়শই সৈকতে দেখা যায়। তাই এই অঞ্চলে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ সম্পর্কিত উচ্চতর বৈজ্ঞানিক গবেষণার খুব প্রয়োজন। 

গবেষণালব্ধ ফলাফল থেকে জানা যায় মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ সামুদ্রিক পরিবেশ, বাস্তুসংস্থান, খাদ্যচক্র ও খাদ্যসুরক্ষায় মারাত্মক হুমকির কারণ। তা উপলদ্ধি করে এই বিষয়ে সমুদ্রতীরবর্তী বিভিন্ন দেশ ব্যপক গবেষণা সম্পন্ন করলেও আমাদের দেশে গবেষণার সংখ্যা খুবই নগন্য বা নাই বললেই চলে। তাই ২০১৯ সাল থেকে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকতে আমরা এই গবেষণা শুরু করি।

ড. মোহাম্মদ বেলাল হোসেন
Loading...

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি নিয়ে পরিচালিত গবেষণায় ড. বেলাল হোসেন এর সাথে যুক্ত ছিলেন একই বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী পার্থ বণিক, আস-আদ উজ্জামান নুর এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালের ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী তুরাবুর রহমান। এই বিজ্ঞানীদল ২০১৯ সালের প্রাক-পর্যটন মৌসুমে (আগস্ট থেকে অক্টোবর) বঙ্গোপসাগরের ভাঁটার সময়ে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের আটটি স্পট থেকে মোট ২৪টি সামুদ্রিক পলল নমুনা সংগ্রহ করেন। সংগৃহিত নমুনাগুলো অত্যাধুনিক যন্ত্রের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ ও নিরীক্ষণ করেন। তাদের গবেষণায় দেখা গেছে যে পৃথিবীর অন্যান্য সমুদ্র সৈকতের তুলনায় এখানে মাইক্রোপ্লাস্টিকের প্রাচুর্যতা বেশি।

নমুনা সংগ্রহের স্থান। সূত্র: মূল গবেষণাপত্র।

কম উৎপাদন খরচ, ব্যবহারের সুবিধা, হালকা কিন্তু মজবুত হওয়ায় বিশ্বে নিত্য ব্যবহার্য বিভিন্ন তৌজসপত্র থেকে শুরু করে শিল্পদ্রব্য, ফার্মাসিউটিক্যাল ও অন্যান্য উপাদান তৈরিতে প্লাস্টিকের ব্যবহার ব্যাপকভাবে বাড়ছে। শুধু ২০১৮ সালেই সারা পৃথিবীতে প্রায় ৩৬০ মিলিয়ন টন প্লাস্টিক উৎপাদিত হয়েছে। মাইক্রোপ্লাস্টিক পরিবেশের বিভিন্ন বাস্তুসংস্থানে পাওয়া যায়, এমনকি এভারেস্টের চূড়াতেও মাইক্রোপ্লাস্টিকের সন্ধান পাওয়া গেছে। বিভিন্ন বর্জ্য প্লাস্টিক সামুদ্রিক জঞ্জাল বা বর্জ্য হিসেবে কোন না কোন ভাবে সমুদ্রে গিয়ে জমা হয়। বড় আকারের প্লাস্টিক বর্জ্য সমুদ্রের ঢেউ, সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মির জারণ প্রভাবে, কিংবা জীববৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় ভেঙে গিয়ে অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা তথা মাইক্রোপ্লাস্টিকে পরিণত হয়। গবেষণালব্ধ ফলাফল থেকে জানা যায় মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষন সামুদ্রিক পরিবেশ, বাস্তুসংস্থান ও খাদ্য সুরক্ষার মারাত্মক হুমকির কারন। মাইক্রোপ্লাস্টিকের দূষণের বিস্তার ইতিমধ্যে পৃথিবীর বিভিন্ন পরিবেশে পাওয়া গেছে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে, মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা থেকে পলিব্রোমিনেটেড ডি-ফেনাইল ইথার (পিবিডিই), বিসফেনল এ, ফ্যালেট সহ বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ নির্গত হয়। এগুলো নানাবিধ ক্যান্সার এবং প্রজননজনিত রোগের কারণ হতে পারে। এই বিপজ্জনক পদার্থগুলি খাদ্যশৃঙ্খলের বিভিন্ন স্তরে যেমন জুপ্ল্যাঙ্কটন, ঝিনুক, কৃমি, ক্রাস্টেসিয়ান, প্রবাল, মাছ এবং সামুদ্রিক পাখিতে জমা হতে পারে পরে বলে বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে। 

মাইক্রোপ্লাস্টিক অতি ক্ষুদ্র হওয়ায় সেগুলো বিভিন্ন অমেরুদন্ডী ও জলজ প্রাণিরা খাদ্য হিসেবে গ্রহন করে ফেলে। কিছু ব্যক্টেরিয়া প্লাস্টিক ভেঙে ফেলতে পারলেও সেটা ধীর প্রক্রিয়া। যেহেতু প্লাস্টিক সহজ পাচ্য না, তাই প্রানীদের ক্ষুধামন্দার সৃষ্টি হয় এবং একসময় না খেয়ে মারা পড়ে। এতে বিভিন্ন প্রানীর বিলুপ্তির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও এই ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কনা থেকে পরিবেশে কিছু ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ নির্গত হয় যা পরিবেশের বাস্তুসংস্থানের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত করে। তাই এ বিষয়ে বিশদ ও বস্তুনিষ্ঠ গবেষণার একান্ত প্রয়োজন।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ২৪টি মাটির নমুনায়ন করে তা অত্যাধুনিক অণুবীক্ষণ যন্ত্রের মাধ্যমে পর্যবেক্ষন ও নীরিক্ষণ পূর্বক আমরা দেখতে পাই পৃথিবীর অন্যান্য সমুদ্রসৈকতের তুলনায় এখানে মাইক্রোপ্লাস্টিকের প্রাচুর্যতা বেশী যা সৈকতটি যে মাইক্রোপ্লাস্টিক দ্বারা দূষিত তা প্রমাণ করে। যেহেতু মাইক্রোপ্লাস্টিকের পুনঃচক্রায়ন খুবই দীর্ঘ বা হয় না সেহেতু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে এই দূষণবাস্তুসংস্থান ও খাদ্যচক্রের উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে।

ড. মোহাম্মদ বেলাল হোসেন
Loading...

যেহেতু এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ নিয়ে খুবই অল্প গবেষণা হয়েছে, তাই এই বিষয়ে আরো ব্যপক গবেষণার প্রয়োজন। শুধু সামুদ্রিক পরিবেশেই নয়, অভ্যন্তরীন মিঠা পানির জলাশয়েও মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি ও এর ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে বিস্তারিত গবেষণার প্রয়োজন। এছাড়াও বিভিন্ন সামুদ্রিক ও স্বাদু পানির প্রানী যেমনঃ কমন ফিস, শেলফিস, গেস্ট্রপোড, বাইভালভ এর মাঝেও এদের উপস্থিতি পর্যালোচনা করা অতীব জরুরী।

গবেষক দলের প্রধান ড. বেলাল হোসেন জানান, বর্তমানে তিনি বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সৈকত কুয়াকাটার পলি নিয়ে কাজ করছেন। এর পাশাপাশি, নোয়াখালীর  বিভিন্ন স্বাদু পানির পুকুর থেকেও নমুনা সংগ্রহ করেছেন। পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে তিনি মাইক্রোপ্লাস্টিক থেকে যেসকল ক্ষতিকর পদার্থ যেমন পিসিবি, পিএএইচ ইত্যাদি ক্ষরিত হয়, পরিবেশে তাদের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে কাজ করার আশা ব্যক্ত করেন।

ড. বেলাল হোসেনের গুগল স্কলার প্রোফাইল

সূত্র: Hossain, M. B., Banik, P., Nur, A. A. U., & Rahman, T. (2020). Abundance and characteristics of microplastics in sediments from the world’s longest natural beach, Cox’s Bazar, Bangladesh. Marine Pollution Bulletin, 163, 111956.

Loading...

আরাফাত রহমান

অণুজীববিজ্ঞানের ছাত্র ছিলাম, বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া, রিভারসাইড-এ পিএইচডি শিক্ষার্থী। যুক্ত আছি বায়ো-বায়ো-১ ও অনুসন্ধিৎসু চক্র বিজ্ঞান সংগঠনের সঙ্গে। আমার প্রকাশিত বই "মস্তিষ্ক, ঘুম ও স্বপ্ন" (প্রকৃতি পরিচয়, ২০১৫) ও "প্রাণের বিজ্ঞান" (প্রকৃতি পরিচয়, ২০১৭)।

You may also like...

আপনার মতামত

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: