অন্ত্রে মাইক্রোবায়োম নেই এমন প্রাণীর সন্ধানে

Share
   
পাঠ সংখ্যা : 158

শরীর বা শরীরের কোন নির্দিষ্ট অংশে স্বভাবতই বিপুল সংখ্যক অণুজীব বসবাস করে যারা খাদ্য হজমে, শক্তি উৎপাদনে, ভিটামিন তৈরিতে এমনকি ক্ষতিকর জীবাণু থেকে আমাদের রক্ষা করতে সাহায্য করে। এসব অণুজীবদের এক কথায় আমরা মাইক্রোবায়োম বা শরীরের অণুজীব বলে থাকি যারা প্রাকৃতিক ভাবেই মানুষ বা অন্য প্রাণীর দেহে থাকে। কিন্তু সিমন্স ফাউন্ডেশনের “Quanta Magazine’’ অনলাইন প্রকাশনার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এমনও প্রাণী আছে যাদের অন্ত্রে মাইক্রোবায়োম নেই বা থাকলেও তা খুবই নগন্য। প্রতিবেদনটির মূলভাব এখানে তুলে ধরা হলোঃ

সুস্থ থাকার জন্য মানুষ এবং অন্যান্য কিছু প্রাণী তাদের অন্ত্রের জটিল ব্যাকটেরিয়া সম্প্রদায়ের ওপর নির্ভর করে। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে যে তাদের এই সম্পর্ক নিয়মের বাইরেও ঘটতে পারে।

২০১১ সালের গ্রীষ্মে, অনুজীববিজ্ঞানী স্নাতকোত্তর ছাত্র জন স্যান্ডার্স বহু বছর পরে  দ্বিতীয় বারের মত গ্রীষ্মমন্ডলীয় ঘনবর্ষণ বনাঞ্চল খুঁজে পেয়েছিলেন। একটি বিশাল ফ্লোরসেন্স মাইক্রোস্কোপ এবং জেনারেটর দিয়ে অ্যামাজন নদী পর্যন্ত ৬০ পাউণ্ড ল্যাব সরঞ্জামে সজ্জিত করেছিলেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলে  পৌঁছে তিনি যত দ্রুত সম্ভব বিভিন্ন পিঁপড়ে ধরতে শুরু করলেন, তাদের অন্ত্রে পরিব্যপ্ত  সব জীবাণু গুলো দেখার জন্য। তিনি সেই পিঁপড়া প্রজাতির কয়েকটিতে “আশ্চর্যজনক, প্যাকেটযুক্ত মেঘ’’ দেখেছিলেন। তার মতে, ‘’এটি ছিল অনুজীবের ছায়াপথের মতো! মাইক্রোস্কোপের নিচে তাদের দিকে তাকালে তারা আপনার চোখে বিস্ফোরিত হবে।” 

চিত্র ১- বিভিন্ন প্রজাতির পিঁপড়ার অন্ত্রে ভিন্ন ধরনের ও ঘনত্বের অণুজীবের উপস্থিতি।Source:  মূল গবেষণাপত্র 

আমরা অন্যভাবে হজম করতে পারি না এমন খাদ্য প্রক্রিয়াকরণের জন্য, মূল পুষ্টি সরবরাহের জন্য, সংক্রমণের বিরুদ্ধে কার্যকরভাবে কাজ করতে আমাদের প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে প্রশিক্ষণের জন্য আমরা এবং অন্যান্য অনেক প্রাণী আমাদের মধ্যে বসবাসকারি  ব্যাকটেরিয়া কোষগুলোর উপর নির্ভর করি। মাইক্রোবায়োম আমাদের স্বাস্থ্য এবং বেঁচে থাকার জন্য এতোটাই প্রয়োজনীয় যে কিছু গবেষক প্রাণীদেরকে তাদের অনুজীবীয় অংশের সমষ্টি হিসাবে ভাবাও দরকারি বলে মনে করেন। কিন্তু স্যান্ডার্স যখন পিঁপড়াগুলোর বাকি অংশ – তার সংগ্রহ করা বিভিন্ন কলোনি এবং প্রজাতির প্রায় দুই-তৃতীয়াংশের দিকে ফিরে গেলেন, তখন তিনি অবাক হয়ে বলেন  ” অন্ত্রে ব্যাকটেরিয়া হিসেবে কোন কোষকে সহজেই শনাক্ত করতে আপনি কঠোর চাপে থাকবেন।’’ খাদ্য, ধ্বংসাবশেষ, পোকামাকড়ের অন্ত্রে আস্তরণের কোষগুলো – সবই উপস্থিত ছিল যেখানে মিথোজীবী অণুজীব বেশি ছিলোনা। 

অণুজীব সম্প্রদায়ের পরিমাপ ও বিশ্লেষণের সরঞ্জামগুলোর উন্নতি হওয়ার সাথে সাথে এটি ধীরে ধীরে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে মাইক্রোবায়োম প্রাণীজগতের সর্বত্র সর্বব্যাপী গুরুত্বপূর্ণ যা প্রায়শই চিত্রিত করা দরকার। জীবাণুদের সাথে অনেক প্রাণীর আরও নমনীয় বা কম স্থিতিশীল সংযোগ রয়েছে বলে মনে হয়। কেউ কেউ তাদের উপর নির্ভর করে বলে মনে হয় না।  উপহাসের বিষয় হচ্ছে, কীভাবে এবং কেন মাইক্রোবায়োমের বিকাশ ঘটে তার রহস্য সম্পর্কে, এর প্রকৃত গুরুত্ব এবং এর মূল অংশে থাকা সুবিধা ও অসুবিধাগুলোর সূক্ষ্ম ভারসাম্যহীন কাজ সম্পর্কে নতুন অন্তর্দৃষ্টি অর্জন করতে এই প্রাণীগুলো এখন বিজ্ঞানীদেরকে সহায়তা করে।

অণুজীব হারিয়ে গেছে

বিশ শতকের গোড়ার দিকে, জীববিজ্ঞানীরা জটিল জীব এবং তাদের অণুজীবের মধ্যে আকর্ষণীয় সম্পর্ক উন্মোচন করতে শুরু করেছিলেন- টিউবওয়ার্ম যার মুখ, মলদ্বার বা অন্ত্র ছিল না; উইপোকা যা শক্ত, কাঠের গাছ খায়; গরু যাদের ঘাসযুক্ত খাদ্যে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে। এই  পর্যবেক্ষণ গুলো কৌতূহল তৈরি করেছে এবং পরবর্তী পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে উৎসাহিত করেছে। সেই বছরগুলোতে, কোনও প্রাণীর মধ্যে মাইক্রোবিয়াল সহায়কের অনুপস্থিতি বিশেষভাবে আশ্চর্যজনক বা আকর্ষণীয় মনে হয় নি এবং এটি প্রায়শই সাহিত্যে পাস করার সম্মতির চেয়ে কিছুটা বেশি পেয়েছিল। এমনকি তার চেয়েও বেশি কিছু বিবেচনা করা হয়েছিল – যেহেতু ১৯৭৮ সালের বিজ্ঞানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে উইপোকার মত নয় এমন ক্ষুদ্র কাঠ-খাওয়া ক্রাস্টেসিয়ানগুলোর অন্ত্রে ব্যাকটেরিয়াগুলোর স্থিতিশীল জনপুঞ্জ ছিলো না।


চিত্র ২- গরু, পাণ্ডা এবং পিঁপড়ার মধ্যে অনুজীবীয় সম্পর্ক 
Source: academic.oup.com/femsle/article-abstract/366/10/fnz117/5499024

এবং তাই এ ধারণা একটি নতুন নিয়মের দিকে যাচ্ছিলো যে প্রতিটি প্রাণীর এমন ব্যাকটেরিয়ার সাথে সম্পর্ক ছিল যা ছাড়া এটি বিনষ্ট হয়। কয়েকজন এই অতি সাধারণ ধারণাটির প্রতিবাদ করেছিল। ১৯৫৩ সালের প্রথম দিকে মিথোজীবীতা গবেষণার অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা পল বুকনার এই ধারণাটি নিয়ে হতাশার সাথে লিখেছিলেন যে বাধ্যতামূলক, স্থির ও কার্যকরী মিথোজীবী সর্বজনীন ছিলো।  তিনি বলেছিলেন, “বারবার লেখকরা জোর দিয়েছিলেন যে এন্ডোসিম্বায়োসিস হলো সমস্ত জীবের একটি প্রাথমিক নীতি”। তবে পাল্টা উদাহরণগুলো পোষক অণুজীবের মিথোজীবিতার গুরুত্ব নিয়ে, বিশেষত যেগুলো মানব স্বাস্থ্য এবং আমাদের নিজস্ব মাইক্রোবায়োমের মধ্যে সংযোগ তৈরি করেছে তার উপর অধিক গবেষণায় জোর দিয়েছিলো।

অ্যান্টিনের টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস্তুতন্ত্র এবং বিবর্তনমূলক জীববিজ্ঞান পোস্ট ডক্টরাল গবেষক টোবিন হ্যামার বলেছেন,”মানব মাইক্রোবায়োম কীভাবে জীবাণুগুলো কাজ করে তা আমাদের চিন্তাভাবনাকে পুরোপুরি চালিত করেছে। এবং আমরা মাঝেমাঝে আমাদের বাইরেও চিন্তা করে থাকি।” তবে শুয়োপোকা এবং প্রজাপতি থেকে শুরু করে সফ্লাই এবং চিংড়ি, কিছু পাখি এবং বাদুড় (এবং এমনকি কিছু পান্ডা) এসব বিভিন্ন প্রজাতির মধ্যে যা চলছে তার জন্য মানব উদাহরণ আদর্শ নয়। এই প্রাণীগুলোতে অণুজীবগুলো বিক্ষিপ্ত, আরও ক্ষণস্থায়ী বা ধারণা  করা যায় না এমন।  তারা প্রয়োজন ছাড়া তাদের পোষকের জন্য খুব বেশি অবদান রাখে না। কানেকটিকাট বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিবর্তনীয় জীববিজ্ঞানী এবং অনুজীবীয় বাস্তু বিশেষজ্ঞ সারা হির্ড বলেছেন,” বিষয়টি আরও জটিল।’’

স্যান্ডার্স তার গ্রীষ্মমন্ডলীয় পিঁপড়ের সাথে ব্যাকটেরিয়ার একটি ক্ষণস্থায়ী এবং প্রায় অস্তিত্বহীন সম্পর্ক দেখেন। তিনি তার নমুনা গুলো পুনরায় তার গবেষণাগারে নিয়ে এসেছিলেন যেখানে তিনি পোকামাকড়ের ব্যাকটেরিয়ার ডিএনএ সিকোয়েন্স করেছিলেন এবং কতটি জীবাণু উপস্থিত ছিল তা নির্ধারণ করেছিলেন। স্যান্ডার্স যে কয়টি প্রজাতির সন্ধান পেয়েছেন তার মধ্যে ঘন, বিশেষায়িত মাইক্রোবায়োম যুক্ত পিঁপড়ের প্রায় ১০০০০ গুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া ছিল। স্যান্ডার্স বলেছেন, পিঁপড়াগুলোকে যদি মানুষের আকারে পরিমাপ করা হত তবে কেউ কেউ তাদের মধ্যে এক পাউন্ড জীবাণু নিয়ে যেত, অন্যরা কেবল কফি বিনের মতো সামান্য কিছু রাখতো। “এটি সত্যিই একটি গভীর পার্থক্য।”

২০১৭ সালে Integrative and Comparative Biology রিপোর্টে দেখা গেছে যে এই পার্থক্য খাদ্যের সাথে জড়িত বলে মনে হয়েছিলো। কঠোরভাবে নিরামিষভোজী গাছে বাসকারী পিঁপড়ার প্রচুর পরিমাণে মাইক্রোবায়োম থাকার সম্ভাবনা ছিলো। সম্ভবত তাদের প্রোটিনের ঘাটতি যুক্ত খাদ্য গ্রহণের জন্য; মাটির নিচে বাসকারী সর্বভুক এবং মাংসাশী  পিঁপড়ে বেশি  সুষম খাবার গ্রহণ করে এবং তাদের অন্ত্রে নগণ্য পরিমাণ ব্যাকটেরিয়া ছিল। তবুও, এই ব্যাপারটি বেমানান ছিল। কিছু গুল্মজাতীয় পিঁপড়ার মাইক্রোবায়োমেরও অভাব ছিলো এবং যে পিঁপড়েগুলোর  মাইক্রোবায়োম ছিলো সেগুলোর  নির্দিষ্ট প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া গুলোর সাথে বিস্তৃত, অনুমানযোগ্য সম্পর্ক রয়েছে বলে মনে হয় না (যদিও কিছু  অনুজীব পৃথক জেনেরার পিঁঁপড়ার মধ্যে সাধারণ ছিল)। এই ফলাফল আমাদের মতো স্তন্যপায়ী মাইক্রোবায়োম থেকে একটি স্পষ্ট ভিন্নতা চিহ্নিত করেছে, যা তাদের পোষক গুলোর জন্য খুব নির্দিষ্ট।

হিমশৈলীর চূড়ায়

স্যান্ডার্স পেরুতে যখন পিঁপড়া পরীক্ষা করছিলেন সেই একই সময়ে, হ্যামার শুঁয়োপোকার মাইক্রোবায়োম সন্ধানে কোস্টা রিকায় ছিলেন (সান্ডার্স মন্তব্য করেছিলেন, “পোকামাকড় জগতের এই গরুগুলোর চেয়ে আর কোনটা উৎকৃষ্ট পাওয়া যেতে পারে যার ব্যাকটেরিয়ার সাথে অত্যাবশ্যকীয় সম্পর্ক আছে?” তবে হ্যামার যেমন চেষ্টা করেছিলেন, তার সংগ্রহ করা পেটের এবং মলদ্বারের নমুনায় খুব বেশি ব্যাকটেরিয়া ডিএনএ খুঁজে পাননি।  তিনি বলেছিলেন, “সত্যিই অদ্ভুত কিছু ঘটেছিল।”

কয়েক মাস ল্যাবে কাজের পরে তিনি হতাশাজনক ভাবে বুঝতে পেরেছিলেন যে প্রাণীগুলোতে কেবল কোন স্থিতিশীল মাইক্রোবায়োম থাকে না! “এটি আমার জন্য চিন্তাভাবনায় পরিবর্তন আনার একটি কারণ ছিল যা মোটেই প্রত্যাশিত ছিল না।” তিনি এবং তার সহকর্মীরা শেষ পর্যন্ত দেখতে পেলেন যে, স্যান্ডার্সের অনেক পিঁপড়ার মতো, শুঁয়োপোকায় অনেক কম পরিমাণে জীবাণু ছিল যা আদর্শ হিসেবে বিবেচিত হওয়ার মত না। হ্যামার বলেছিলেন, “তদুপরি সেই জীবাণু গুলো  কেবলমাত্র প্রাণীর গাছপালার ডায়েটের মধ্যে পাওয়া একটি উপসেট ছিল, যা এই ধারণাকে সমর্থন করে যে তারা ক্ষণস্থায়ী ভাবে থাকছে। মূলত তাদের মধ্যে কিছু হজম হচ্ছে, তারা অন্ত্রে স্থিতিশীল জনপুঞ্জ স্থাপন করছে না।”


চিত্র ৩ – শুঁয়োপোকা Eumorpha satellitia. 
Source: biotechniques.com/microbiology/animals-without-gut-microbiomes/

এই ক্ষণস্থায়ী ব্যাকটেরিয়াগুলো শুঁয়োপোকার উপকার করেছে কিনা তা নির্ধারণ করার জন্য, গবেষকরা এন্টিবায়োটিক দিয়ে তাদের দূর করেছিলেন। অন্যান্য পোকামাকড় এবং প্রাণীতে এই ধরনের চিকিৎসা পোষককে সরাসরি বিকাশ বা হত্যা করে। তবে এটি হ্যামারের শুঁয়োপোকায় কোনো প্রভাব ফেলেনি।

ভারতের বেঙ্গালুরুতে ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োলজিকাল সায়েন্সেসের ভারতের বাস্তুবিদ এবং বিবর্তনমূলক জীববিজ্ঞানী দীপা আগাশে ও তার দল তাদের ক্যাম্পাসের সবুজাভ অংশের বেশ কয়েকটি জায়গা থেকে সংগ্রহ করা পোকামাকড়ের মধ্যে একইরকম কিছু দেখতে পেল। ড্রাগনফ্লাই এবং প্রজাপতিগুলোতে তারা যে অণুজীবগুলো পেয়েছিল সেই গুলো কোনও বিশেষ পোকার প্রজাতি বা বিকাশের পর্যায়ে না গিয়ে পোকামাকড়ের  খাবারের সাথে দৃঢ়ভাবে সম্পর্কযুক্ত। ড্রাগনফ্লাই এর ব্যাকটেরিয়া সম্প্রদায়ের বেশিরভাগই সুযোগ পেয়ে একত্র হয়েছে বলে মনে হয়েছে। আগাশে বলেছিলেন, “পোকামাকড় গুলো নির্দিষ্ট প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া বা কোনও বিশেষ ধরনের ব্যাকটেরিয়া বেছে নিচ্ছে বলে মনে হয় না, বেশিরভাগ কেবল সেখানে নামে মাত্র   ছিল।”

প্রজাপতির মাইক্রোবিয়াল জনপুঞ্জ ব্যাহত করে এমন বারবার পরীক্ষা-নিরীক্ষা গুলো পোষকের বৃদ্ধি বা বিকাশের উপর কোনো প্রভাব ফেলেনি। এমনকি তাদের অন্ত্রের সাথে ব্যাকটেরিয়াকে পুনঃপ্রবর্তন করতে পারেন নি । আগাশে বলেছিলেন, ” সত্যিই তারা তাদের জীবাণুগুলোর তত্ত্বাবধায়ন করে বলে মনে হয় না।” হ্যামার এবং স্যান্ডার্সের মতে যদিও প্রজাপতিগুলো খাবারের জন্য বিষাক্ত উদ্ভিদের উপর নির্ভর করে, পরিপূর্ণ, কার্যকরী মাইক্রোবায়োম কে তাদের খাবার বিষমুক্ত করতে উপযুক্ত মনে হয়। আগাশে বলেছিলেন, “প্রথম দিকে আমরা আমাদের মাথা চুল্কাচ্ছিলাম। এটি একটি আশ্চর্যজনক ফলাফল ছিলো এবং প্রকৃতপক্ষে এই বিষয় নিয়ে আমাদের মাথা খাটাতে কিছুটা সময় লেগেছিলো।”

তবে এতে এত অবাক হওয়ার কিছু নেই যেহেতু বিজ্ঞানীরা বুঝতে পেরেছিলেন যখন মাইক্রোবায়োম উপস্থিত থাকে তখন তারা প্রায় নির্দিষ্ট টিস্যুতে পাওয়া যায়। এতে নির্দিষ্ট ব্যাকটেরিয়া জড়িত যা নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য গুলো কে প্রভাবিত করে। উদাহরণস্বরূপ, ববটেল স্কুইডের একটি মিথোজীবিতা রয়েছে যা এক প্রজাতির আলোকিত ব্যাকটেরিয়ায় সীমাবদ্ধ যেটা একক আলোক উৎপাদনকারী অঙ্গে বিভক্ত থাকে। যখন স্কুইডের অন্ত্র এবং ত্বক অণুজীব মুক্ত থাকে। প্রাপ্তবয়স্ক মৌচাকের তাদের ব্যাকটেরিয়ার সাথে অন্তরঙ্গ সম্পর্ক রয়েছে তবে লার্ভার থাকে না।

সুতরাং এমন না ভাবার কোন কারণ নেই যে এমন প্রাণী থাকতে পারে যার এরকম সম্পর্ক নেই। আগাশে বলেছিলেন, “আমি মনে করি এই ধরনের সংযোগের পুরো বিস্তৃতি আপনি খুঁজে পেতে পারেন বর্তমানে এমন ক্রমবর্ধমান অনুধাবন রয়েছে। “

হ্যামার সহমত হলেন, “আমরা কেবল হিমশৈলির শীর্ষে এক ঝলক পেয়েছি”। 

তিনি বলেছিলেন, “এটি গরু এবং শুঁয়োপোকার মধ্যে দ্বন্দ্ব নয়, এখানে বিভিন্ন ধরণের জীবনধারা রয়েছে যা সত্যিই জটিল হয়ে উঠছে।” সম্ভবত ক্ষণস্থায়ী, স্বল্প-প্রাচুর্যের জীবাণুগুলো আরও উপদ্রব জনক কিছু করছে বা সম্ভবত তারা আরও স্থিতিশীল বিবর্তনমূলক সম্পর্ক গঠনের প্রাথমিক পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে। হতে পারে তারা বেশিরভাগ সময় নিরপেক্ষ থাকে এবং কিছু নির্দিষ্ট প্রেক্ষাপটে কেবল কার্যকরী হয়ে ওঠে। উদাহরণস্বরূপ, কিছু গবেষক মনে করেন যে এই অনুজীব গুলো কেবল অন্ত্রে অবস্থান করে, জীবাণু গুলোকে অবরুদ্ধ করে কোন পোষককে সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে। তদুপরি, ব্যাকটেরিয়া যেগুলো একটি বিষাক্ত উদ্ভিদ বা অন্যান্য বিপদের সাথে খাপ খাইয়ে নিয়েছে যা হয়তো সাময়িকভাবে অর্জিত, তারা কখনও কখনও নিয়মিত  মিথোজীবীতায় জড়িত না হয়েও সহায়ক হতে পারে।

অ্যারলিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবিয়াল বাস্তুবিদ এবং কীটপতঙ্গ বিদ  অ্যালিসন রাভেনস্ক্রাফ্ট বলেছেন, “এমনকি যদি কোনও ক্ষণস্থায়ী মাইক্রোবায়োম আপনার সাথে যুক্ত না হয়, আপনি যদি পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়া ব্যাকটেরিয়া গিলে ফেলেন তাহলে সম্ভবত আপনি তাদের থেকে সুবিধা পেতে পারেন। এটি শুধুমাত্র পরিমাপ করা আরও কঠিন হবে।”

তিনি এটাও বলেন, ” এমনকি মানুষের মধ্যেও মাইক্রোবায়োম (ক্ষণস্থায়ী জীবাণুগুলো সহ) ডায়েট বা আচরণে পরিবর্তন আনতে পারে।’’ স্থিতিশীল মাইক্রোবায়োমের উপর নির্ভর করে না এমন জীবনধারা নিয়ে গবেষণা বিজ্ঞানীদের সেই পরিবর্তনের প্রভাব দূর করতে সহায়তা করতে পারে। এটি মাইক্রোবায়োম থাকার গুরুত্ব আরও ভালোভাবে চিহ্নিত করে বিবর্তনে নতুন অন্তর্দৃষ্টি অর্জন করতে পথ দেখায়। 

বৈচিত্র্য থেকে যা শিখলাম

আগাশে বলেছিলেন, “আপনি যদি এটি নিয়ে চিন্তা করেন তবে স্থায়ী মাইক্রোবায়োম না রাখার অনেক কারণ রয়েছে। আসলে অবাক হওয়ার কিছু নেই যে এমন প্রাণী রয়েছে যা বিভিন্ন দিকে চলেছে। তবে মূল বিষয়টি হলো আমরা জানি না কেন – কোন কারণে মাইক্রোবায়োম গঠনে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করতে সক্ষম করে এবং বিপরীতে, কী কারণে এই সম্পর্ক গুলো প্রতিরোধ করতে পারে।

শুঁয়োপোকা, ড্রাগনফ্লাই, কিছু পিঁপড়া এবং অন্যান্য প্রাণী লিভ-ইন অণুজীবের সাথে দীর্ঘস্থায়ী সহাবস্থান মূলক সম্পর্কের সম্ভাব্য অসুবিধাগুলো তদন্ত করার একটি উপায় বের করে। যে অসুবিধা পরিমাপ এবং পরীক্ষা করা কঠিন হতে থাকে। গবেষকরা সন্দেহ করেছেন যে এই প্রাণীগুলো সম্ভবত নির্দিষ্টভাবে মিথোজীবিতার সম্ভাব্য কিছু প্রতিকূলতা এড়িয়ে চলেছে। উদাহরণস্বরূপ ব্যাকটেরিয়া তাদের পুষ্টির জন্য তাদের পোষকের সাথে প্রতিযোগিতা করতে পারে বা প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে। 

কিছু প্রাণীর ক্ষেত্রে, এই ঝুঁকিগুলো সম্ভাব্য সুবিধা সমূহ ছাড়িয়ে যেতে পারে। যদি তাদের নিজের বাঁচার জন্য দরকার এমন এনজাইম বা আচরণগুলো ইতিমধ্যে প্রকাশ হয়ে থাকে তবে তারা কোনও মাইক্রোবায়োম অর্জনের জন্য বাছাইকৃত চাপের মুখে পড়ে না। হ্যামার বলেন শুঁয়োপোকার ক্ষেত্রে এটি হতে পারে, যা প্রচুর পরিমাণে উদ্ভিদ উপাদান খেয়ে তাদের নিরামিষভোজী জীবনযাপন সঞ্চার করে। তাত্ত্বিকভাবে একটি শুঁয়োপোকার মাইক্রোবায়োম বাড়তি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উৎপাদন করতে বা আরও বেশি পুষ্টি তৈরি করতে সক্ষম। কিন্তু কীটপতঙ্গ গুণগত মানের খাবার তৈরি করতে পারে। 

অণুজীবের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতিতে এমন আরেকটি কারণ শারীরবৃত্তীয় বলে মনে হচ্ছে (যদিও কারণ এবং প্রভাব এর মধ্যে অস্পষ্ট রেখাটি দেখে আগাশে এটিকে সঠিক ব্যাখ্যা মনে করেন না)। কতিপয় ব্যাকটেরিয়া বহনকারী বেশিরভাগ জীবের একটি ছোট, সাধারণ অন্ত্রের কাঠামো থাকে, মূলত এমন একটি নল যার মধ্য দিয়ে খাদ্য দ্রুত চলে যায় এবং প্রক্রিয়াজাত হয়। এটি অণুজীবকে দৃঢ়ভাবে থাকার এবং বাড়ার জন্য সময় বা স্থান দেয় না।

বাস্তুগত বিষয়গুলোও বিবেচনা করা উচিত। তিনি বলেন,”এটি আসলে বেশ অবিশ্বাস্যরূপে আশ্চর্যজনক যে কীভাবে মিথোজীবিতা হওয়া উচিত বা ঘটতে পারে।’’ বংশ পরম্পরায়, কোনও জীবকে প্রায়শই এমন অংশীদারিত্ব নিয়ে অন্য একটি প্রজাতির মোকাবিলা করতে হয় যা পরিবর্তনীয়ও অবস্থার মধ্যেও নিয়মিত এবং পারস্পরিক উপকারী। আগাশে অনুমান করেন যে তার প্রজাপতি এবং ড্রাগনফ্লাই গুলো ক্রমশ জায়গায় জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং খাদ্যাভ্যাস গ্রহণ করে যা স্থান এবং ঋতুতে পরিবর্তন হয়।তাই তাদের স্থিতিশীল মাইক্রোবায়োম প্রতিষ্ঠার জন্য একই ব্যাকটেরিয়ার সাথে দেখা হয়  না।

গবেষকরা জোর দিয়ে বলেছেন যে মাইক্রোবায়োমের বিবর্তনকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সম্ভবত কোনও একক নিয়ম বা নীতি নেই। স্যান্ডার্স বলেছিলেন,”বিবর্তনটি অবিশ্বাস্য, স্বকীয় এবং বিভিন্ন জীবের মধ্যে এটি সম্পূর্ণ ভিন্ন পথে অগ্রসর হয়।”

হির্ড আগাশের সাথে একমত হলেন। তিনি বলেছিলেন, “মাইক্রোবায়োম সম্পর্কে আমাদের বেশিরভাগ অনুমান স্তন্যপায়ী গবেষণার উপর নির্ভর করে, যেখানে স্তন্যপায়ী প্রাণীরা অদ্ভুত। আমাদের প্রতিদিনের ভিত্তিতে মাছ বা পাখি বা শুঁয়োপোকা জাতীয় কোন কিছুতেই স্থিতিশীলতা নেই।”

এমনকি স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যেও মাইক্রোবায়াম কীভাবে নিজেকে উপস্থাপন করে তার মধ্যে বৈচিত্র রয়েছে। যদিও বেশিরভাগ স্তন্যপায়ী প্রজাতি নির্দিষ্ট ব্যাকটেরিয়ার সাথে যুক্ত বলে মনে হয়, স্যান্ডার্স এবং তার সহকর্মীদের সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে বাদুড় এমন হয় না। প্রকৃতপক্ষে তাদের মাইক্রোবায়োম আরও ক্ষণস্থায়ী এবং এলোমেলো।  স্তন্যপায়ী প্রাণীর চেয়ে পাখির মাইক্রোবায়োমের সাথে অনেক বেশি মিল ছিলো । গবেষকরা মনে করেন যে এই পার্থক্য বাদুড় এবং পাখি উভয়েরই উড়ে চলতে যথাসম্ভব হালকা হওয়ার প্রয়োজনের সাথে সম্পর্ক থাকতে পারে। সম্ভবত তারা কোনও অতিরিক্ত ভার বহন করতে পারতো না।

নির্বিশেষে, অনুসন্ধানগুলো ব্যাখ্যা করে যে প্রজাতির তুলনা করে শেখার মতো অনেক কিছুই রয়েছে। ব্যাকটেরিয়ার সাথে তাদের সম্পর্ক কী হতে পারে তা নিয়ে অগ্রিম অনুমান করে অনেক কিছুই হারানোর সম্ভাবনা থাকতে পারে। এর মানে হচ্ছে কমপক্ষে মাছি, ইঁদুর এবং অন্যান্য মডেল জীবের গবেষণা মানুষে রুপান্তর করার সময় আরও সতর্কতার সাথে এগিয়ে যাওয়া। (ইতিমধ্যে, বুনো ইঁদুর বনাম ল্যাবে ব্রিড ইঁদুরের অন্ত্রের মাইক্রোবায়োমে  উল্লেখযোগ্য পার্থক্য পাওয়া গেছে এবং প্রায়শই কিছু নির্দিষ্ট পরীক্ষামূলক ওষুধ কীভাবে  মানুষের মধ্যে কাজ করতে পারে তার আরও একটি সঠিক মডেল হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে।)

স্যান্ডার্স বলেছিলেন, “প্রতিটি বিদ্যমান জীবের পেছনে সাড়ে তিন বিলিয়ন বছরের বিবর্তনমূলক ইতিহাস রয়েছে, ১০ লক্ষ বা ৫০ লক্ষ বা আরও অধিক লক্ষ বছর আগের যা আমরা মডেল হিসেবে নিই এমন অনুজীবের সাথে মিলে না।’’ ফলমূলের মাছির অন্ত্রের মাইক্রোবায়োমের গুরুত্ব বা মিথস্ক্রিয়া সম্পর্কিত মডেল নিয়ে অনুমান করার সময় অনুজীবের সাথে প্রাণিদের বৈচিত্র্যময় সম্পর্ক নিয়ে বিজ্ঞানীদের উদীয়মান সচেতনতা সত্যিই আমাদের সতর্ক করে। কারণ ফলের মাছিগুলো মৌলিক সূচনালগ্ন থেকে মানুষের তুলনায় খুব ভিন্নচালিত হতে পারে। ইঁদুরের ক্ষেত্রেও তা একই ।

তিনি আরও বলেছেন,“আমাদের চোখ এবং কান খোলা রাখা দরকার। প্রাকৃতিক ভিন্নতা এবং বৈচিত্র্য থেকে এখনও অনেক কিছু শিখতে হবে।”

যখন বিজ্ঞানীরা আমাদের নিজস্ব থেকে ব্যাপকভাবে পৃথক কিছুকে স্বীকৃতি দিতে শুরু করেছেন তখন মাইক্রোবায়োম এর ক্ষেত্রে হ্যামার বলেছিলেন,”আমি মনে করি তাদের এখনো অদ্ভুতরূপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা সম্পূর্ণ অস্বাভাবিক।” এতটাই যে স্যান্ডার্স এবং অন্যরা তাদের কিছু কাজ প্রকাশ করা চ্যালেঞ্জ জনক বলে মনে করেছে।

যত দ্রুত এই মনোভাব পরিবর্তন হবে, ততই আমরা আরও শিখতে সক্ষম হব। হির্ড বলেছেন,”আমরা সবেমাত্র খুব অল্প জায়গায় শত শত প্রজাতি থাকার জটিলতা, একে অপরের সাথে মিথস্ক্রিয়া করা, তাদের পরিবেশের সাথে কথা বলার এবং পোষকের সাথে আলাপচারিতা করার বিষয়টির  চারপাশে মাথা খাটানো শুরু করেছি, প্রতেক্যটা দৃশ্যকল্প সম্ভবত এখনও প্রমাণ করা বাকি।”

তথ্যসুত্রঃ quantamagazine.org/why-is-the-microbiome-important-in-some-animals-but-not-others-20200414/

Loading...
ছড়িয়ে দেয়ার লিঙ্ক: https://bigganblog.org/2021/05/অন্ত্রে-মাইক্রোবায়োম-নেই/
4.3 4 ভোট
Article Rating
আলোচনার গ্রাহক হতে চান?
Notify of
guest

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

1 Comment
পুরানো
নতুন সবচেয়ে বেশি ভোট
লেখার মাঝে মতামত
সকল মন্তব্য