পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-৬

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায়-২: আলো অনুচ্ছেদ-১: কণা ও তরঙ্গ এটি যদি আমরা স্বীকার করে নিতে প্রস্তুত থাকি যে এই পৃথিবীতে প্রতিটি পদার্থ পরমাণু দিয়ে গঠিত তাহলে এই পশ্নটিও খুব যুক্তি সংগত হবে যে এই পৃথিবীতে এমন কিছু আছে কিনা যা পদার্থ নয় এবং একই কারনে পরমাণু দিয়ে গঠিত-ও নয়। প্রথম সম্ভাব্য উত্তর যা মনে আসতে পারে তা হচ্ছে আলো। মানুষ সর্বদাই স্পষ্টভাবে ধারনা করে এসেছে যে আলো পদার্থ নয়। কঠিন এবং তরল স্পর্শ করা যায়, তাদের ভর আছে তাই ওজনও আছে এবং তারা জায়গা দখল করে। গ্যাস, কঠিন এবং তরলের মতো অনুভব করা না গেলেও গতিশীল বিস্তারিত

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-৫

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায়-১: পদার্থ অনুচ্ছেদ-৫: বিভিন্ন প্রকার পরমাণুর মধ্যে পার্থক্য পরমাণু যদি বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে তাহলে যৌক্তিকভাবেই ধরে নেওয়া যায় যে তাদের মধ্যে যথেষ্ট পরিমান পার্থক্য থাকবে, বিশেষ করে বিভিন্ন পরমানুর ধর্ম হবে বিভিন্ন ধরনের। যাদি তা না-ই হয় অর্থাৎ সবধরনের পরমাণুর ধর্মই যদি একই রকম হয় তাহলে কেনইবা একগুচ্ছ পরমাণু একত্রিক হয়ে সোনা আর অপর একগুচ্ছ পরমাণু একত্রিত হয়ে সীসা তৈরি করবে? প্রাচীন গ্রীক পন্ডিতরা সবচেয়ে বেশী প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছিলেন যেই বিষয়টিতে তা হচ্ছে জ্যামিতি, কাজেই তাঁরা যেহেতু মৌলিক পদার্থ এবং পরমাণু নিয়ে চিন্তা করেছিলেন, তাদের পক্ষে পরমাণুর আকৃতি নিয়েও চিন্তা করাটাই স্বাভাবিক। বিস্তারিত

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-৪

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায়-১: পদার্থ অনুচ্ছেদ-৪: পরমাণুর বাস্তবতা পারমাণবিক তত্ত্ব যতোই ভালোভাবে কাজ করুক কিংবা যতোই দক্ষতার সাথে এর উন্নতি ঘটানো হোক কিংবা যতোই এটি নতুন নতুন আবিষ্কারের দিকবর্তিকা দিক না কোন, একটি অস্বস্তিকর বাস্তবতা শেষ পর্যন্ত রয়েই যায় আর তা হচ্ছে পরমাণু কেউই দেখতে পায়নি কিংবা কেউ কোনোভাবে শনাক্ত-ও করতে পারে নি। পরমাণুর যাবতীয় সাক্ষ-প্রমাণই পরোক্ষভাবে অর্জিত। আপনি হয়তো পরমাণু ধরে নিলে আপনার অমুক পরীক্ষা ব্যাখ্যা করতে পারছেন কিংবা তমুক পর্যবেক্ষণের ভিত্তি দিতে পারছেন কিন্তু পুরো বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে ভুলও হতে পারে। পারমাণবিক তত্ত্ব মোটের উপর একটি চিত্র দেয় যা ঠিকঠাক কাজ করে বলে দেখা যায়, বিস্তারিত

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-৩

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায়-১: পদার্থ অনুচ্ছেদ-৩: পরমাণুবাদের বিজয় যেসকল বস্তু পৃথিবীতে উৎপন্ন হয় তাদের অধিকাংশই মৌলিক নয় তবে সেগুলোকে একাধিক মৌলিক পদার্থে বিশ্লেষণ করা যায়। যেসব বস্তু একাধিক মৌলিক পদার্থের সমন্বয় হিসেবে পাওয়া যায় সেগুলোকে যৌগিক পদার্থ বা যৌগ বলা হয় (ইংরেজিতে compound, যা একটি ল্যাটিন শব্দ থেকে এসেছে যার অর্থ একসাথে স্থাপন)। রসায়নবিদগণ ক্রমশঃ কোন বস্তু কী পরিমান বিভিন্ন মৌলিক পদার্থ নিয়ে গঠিত তা শনাক্ত করতে প্রবল উৎসাহী হয়ে উঠলেন। এর শুরু হয় ফরাসী রসায়নবিদ যোসেফ লুই প্রাউস্ট (Joseph Louis Proust, ১৭৫৪-১৮২৬) এর হাত ধরে যিনি এই সমস্যা নিয়ে কাজ শুরু করেন এবং একটি যুগান্তকারী বিস্তারিত

পরমাণুর অভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-২

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায়-১ অনুচ্ছেদ-২: মৌলিক পদার্থ এই বিশ্ব কী দিয়ে তৈরি তা ভেবে প্রাচীন গ্রীক দার্শনিকরা চমৎকৃত হতেন। পরিষ্কারভাবে বোঝা যায় এটি অগণিত বিভিন্ন ধরনের বস্তু দিয়ে তৈরি কিন্তু বিজ্ঞানীরা সবসময়ই এই উপাদানগুলোকে সরলীকরনের তাগিদ অনুভব করে আসছেন। বিজ্ঞানীদের কাছে সবসময়ই অনুভূত হয়ে এসেছে যে, এই বিশ্ব কিছু সরল ভিত্তিমূলক উপাদান দিয়ে গঠিত এবং বিশ্বের সবকিছু সেই সরল ভিত্তিগত উপাদানগুলোর বিভিন্ন রকম রূপভেদ এবং সংমিশ্রণ। খুব সম্ভবতঃ থ্যালেস (Thales, ৬৪০ -৫৪৬ খ্রীষ্টপূর্বাব্দ) ছিলেন প্রথম গ্রীক দার্শনিক যিনি মতামত দিয়েছিলেন যে পানিই হচ্ছে এই বিশ্বের সকল বস্তুর মূল ভিত্তি যা দিয়ে সকল বস্তু তৈরি হয়েছে। অপর বিস্তারিত

পরমাণুর অভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ-১

পরমাণুর অাভ্যন্তরীন মহাবিশ্বে ভ্রমণ মূল: আইজ্যাক আসিমভ অধ্যায় -১: পদার্থ পরিচ্ছেদ-১: পদার্থের বিভাজন মনে করুন আপনার কাছে একটি বড়সড় বালুর স্তুপ আছে। বালুর দানাগুলো মসৃন এবং সেগুলো পরিমানে কয়েক লক্ষ। সেই বালুর স্তুপটি নিয়ে আপনার আপাততঃ কিছু করার নেই। এমন পরিস্থিতিতে আপনি চাইলেন বালুর স্তুপটিকে সমান দুইভাগে ভাগ করবেন। প্রথমবার ভাগ করার পর একটি ভাগ ফেলে দিয়ে অপর ভাগটিকে আবারো সমান দুইভাগে ভাগ করলেন। এই দু’টি ক্ষুদ্রভাগের মধ্যে একটি ভাগ ফেলে দিয়ে অপর ভাগটিকে আবারো সমান দুইভাগে ভাগ করলেন এবং এভাবে বারবার ভাগ করতে করতে বালির স্তুপটিকে ছোট থেকে ছোট করতে লাগলেন। আপনি হয়তো এরই মধ্যে ভাবছেন কতক্ষণ এই ভাগাভাগি বিস্তারিত