অনলাইন একাডেমিক প্রোফাইল

Share
   
Loading...

বর্তমান সময়ে সকল গবেষকদের একাডেমিক প্রোফাইল অনলাইনে থাকা খুব দরকারি। যারা গবেষণা অনুদান দিবে অথবা গবেষণা-সম্পর্কিত চাকরি দিবে, তারা সহজেই আপনার সব কাজ একসাথে দেখে নিতে পারে। অনেক জার্নাল এই কারণে অনলাইন একাডেমিক প্রোফাইল অথরের নামের সাথে বসিয়ে দিতে আগ্রহী। এই অনলাইন একাডেমিক প্রোফাইল ব্যাপারটা খুবই দরকারি জিনিস। এই দরকারি জিনিসটা করার জন্য অনেকগুলো প্ল্যাটফর্ম আছে এখন। যেমনঃ গুগল স্কলার, অর্কিড, একাডেমিয়া ডট এডু, রিসার্চগেট ইত্যাদি। কিন্তু, অনেক অনেক প্ল্যাটফর্মের মাঝে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে রিসার্চগেট। ২০১৬ সালের পরিসংখ্যান অনুসারে ১১ মিলিয়ন ব্যাবহারকারী এবং ১০০ মিলিয়ন পাবলিকেশন।

কি কারণে রিসার্চগেট এতো জনপ্রিয়?

Image result for researchgate
অন্য সব অনলাইন একাডেমিক প্রোফাইলের মত এখানে নিজের কাজ উপস্থাপন করার পাশাপাশি পাওয়া যায় একটা স্কোর। যা RG স্কোর নামে পরিচিত। কথা হল, গুগল স্কলারও কিছু ডাটা (Citations, h-index, i10-index) উপস্থাপন করে প্রতি প্রোফাইলের উপর।

সেই স্কোর রেখে কেন সবাই RG স্কোর নিয়ে মাথা ঘামায়?

Loading...

গুগল স্কলারের সব গুলো ডাটা (Citations, h-index, i10-index) নির্ভর করে গবেষণাপত্রের গুণগত মানের উপর। কিন্তু, RG স্কোর যে কিসের উপর নির্ভর করে তা খুব পরিষ্কার করে কোথাও থেকে জানা যায় না। তবে, অনেকের মতেই এই স্কোর নির্ভর করে গবেষণাপত্রের সংখ্যা, গবেষণাপত্র কতবার দেখা হলো, প্রোফাইল কতবার দেখা হলো, ফুল টেক্সট আপলোড – ডাউনলোড, সাইটেশন, প্রশ্ন করা, প্রশ্নের উত্তর দেয়া – এই সবের উপর। তার মানে, অনেক ভালো পাবলিকেশন না করেও অন্য বিভিন্ন উপায়ে RG স্কোর পাওয়া সম্ভব, যা গুগল স্কলারে অসম্ভব।

স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন চলে আসে যে কতোটা গ্রহণযোগ্য এই RG স্কোর?

No photo description available.
আমি নিজস্ব মতামত না দিয়ে, একটা গবেষণা পত্রের উপর ভিত্তি করে এই উত্তরটা দেয়ার চেষ্টা করব। এই গবেষণায় তারা RG স্কোরের উপর ভিত্তি করে অনেকগুলো প্রোফাইলকে কিছু গ্রুপে ভাগ করেন। আমি এর মাঝে দুইটা গ্রুপ নিয়ে কথা বলবো। একটা গ্রুপ (গ্রুপ ১) হল, যাদের RG স্কোর ১০০ এর উপর আর অন্য গ্রুপটা (গ্রুপ ২) হল নোবেল লরিয়েটদেরকে নিয়ে। গ্রুপ ১ এর প্রোফাইলগুলোর RG স্কোর শূন্য থেকে ম্যাক্সিমাম ৩৪ ভাগ নির্ভর করে গবেষণাপত্র প্রকাশের উপর ।
Image may contain: text
অন্যদিকে, গ্রুপ ২ এর ২৫ টা প্রোফাইলের মাঝে ২৩ জনের RG স্কোর ১০০ ভাগ নির্ভর করে শুধু গবেষণাপত্রের উপর। মনে রাখা উচিত, গ্রুপ ২ এর সবাই নিজ ক্ষেত্রে অনেক উপরের দিকের বিজ্ঞানী, কিন্তু তাদের RG স্কোর ৫০ কি ৬০ করে। রিসার্চগেট অনেক বড় একটা কমিউনিটি। একটা প্রোফাইল থাকা জরুরি এখানে। কিন্তু, তাদের RG স্কোর খুবই মিসলিডিং। পক্ষান্তরে, গুগল স্কলারের প্রতিটা পরিসংখ্যান পারফেক্টলি স্যান্সিবল।

রেফারেন্সঃ

এই লেখায় উল্লেখ করা পরিসংখ্যানগুলো পাওয়া যাবে
Do ResearchGate scores create ghost academic reputations?
Loading...

You may also like...

৪ Responses

  1. সৈয়দ মনজুর মোর্শেদ says:

    অনেকদিন পর আপনার লেখা পেলাম 🙂

  2. Arif Ashraf says:

    কথা সত্য। নিয়মিত লেখার চেষ্টা করব।

  3. খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ব্যক্তিগতভাবে আমি রিসার্চগেটের চাইতে গুগল স্কলার পছন্দ করি।

  4. Arif Ashraf says:

    একমত, আরাফাত। গুগল স্কলার অনেক যুক্তিযুক্ত স্ট্যাটিস্টিক দেয়।

আপনার মতামত

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: