যে হ্রদকে বলা হয় বজ্রের রাজধানী

মারাকাইবো হ্রদ। স্প্যানিশ ভাষায়  লাগো দে মারাকাইবো  উত্তর-পশ্চিম ভেনেজুয়েলার একটি জলাশয়। প্রায় ৫,১৩০ বর্গ মাইল (১৩,২৮০বর্গ কিলোমিটার) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।

ভেনিজুয়েলা উপসাগর থেকে ১৩০ মাইল (২১০কিঃমিঃ) পর্যন্ত দক্ষিণ দিকে বিস্তৃত। হ্রদটি  ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ তাবলাসো প্রণালীর মাধ্যমে ভেনিজুয়েলা উপসাগরের সাথে সংযুক্ত। কাতাতুম্বা, সান্তা-আনা ও চামা নদীগুলি হ্রদটিতে মিষ্টি পানি বয়ে নিয়ে আনে। হ্রদটির উত্তরের অংশের পানি কিছুটা লবনাক্ত।

বিশ্বের শীর্ষ বজ্র হটস্পট উত্তর-পশ্চিম ভেনিজুয়েলার মারাকাইবো হ্রদের উপরে।

মারাকাইবো লেকটিকে একটি খাড়ি বলা যায়। কারণ এর প্রাপ্ত পানির বেশিরভাগই আটলান্টিক মহাসাগর থেকে জোয়ারের দ্বারা এসে জমা হয়। এই হ্রদে জাহাজ চলাচল করে। হ্রদটির নিচে ও আশেপাশে মারাকাইবো বেসিনে পেট্রোলিয়ামের মজুদ আছে। ফলে এটি ভেনেজুয়েলার একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অঞ্চল। অনেক বছর ধরে হ্রদটির মুখে প্রায় ১৬ মাইল (২৬ কিঃমিঃ) পর্যন্ত পাথরের প্রাচীর দ্বারা আটকানো ছিলো। যার ফলে এখান থেকে বড় আকারের জাহাজ চলাচল করতে পারতো না।

১৯৩০-এর দশকে ধীরে ধীরে ড্রেজিংয়ের পরে গভীরতা ২৫ ফুট (8 মিটার) বৃদ্ধি পেয়েছিলো। ২ মাইল (৩ কিলোমিটার) লম্বা পাথরের একটি প্রাচীর ভেঙ্গে পথটিকে আরো চওড়া এবং ৩৫ ফুট (১১-মিটার) গভীর করা হয়। আর এই কাজ ১৯৫৭ সালে শেষ হয়।

মারকাইবো বাজ হটস্পট।

এতক্ষন এই হ্রদের যে বর্ণনা দিলাম তার কারন এই হ্রদটি অন্য কারণে বিখ্যাত। এই হ্রদটি বিশ্বের বজ্রপাতের নতুন ‘হটস্পট’ হয়ে উঠেছে। পূর্বে আফ্রিকার কঙ্গো নদীর অববাহিকাকে বিশ্বের সবচেয়ে বজ্রপাতপ্রবণ এলাকা ঘোষণা করা হলেও নতুন করে ভেনেজুয়েলার এই হ্রদের কথা বল হচ্ছে।  স্থানীয় মানুষ লেক মারাকাইবোর বজ্রপাতের এই ঘটনাটিকে “রেলামপেগো দেল কাটাটুম্বো” (কাটাটুম্বো বাজ) বলে।

ভেনেজুয়েলার কঙ্গো গ্রামে কাতাটুম্বো নদীর ধারে, প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো সময়ে বজ্রপাত হয়।

এর নামকরণ করা হয়েছে কাটাটুম্বো নদীর নামানুসারে। যেটি মারাকাইবো হ্রদের দক্ষিণ তীরে প্রবেশ করেছে নদীর মুখকে কেন্দ্র করে বজ্রপাত হয়। নাবিকরা বজ্রপাতকে “ফারো দে মারাকাইবো”  বা “দ্য বীকন অফ মারাকাইবো” বলে। কারণ, একটি বাতিঘরের মতো, ফ্ল্যাশগুলি চারশো মাইল দূর থেকেও দেখা যায়। এমনকি কিছু পরিষ্কার রাতে ক্যারিবীয় অঞ্চলে স্পষ্টভাবে দেখা যায়। 

১৯৯৭ সালে, নাসা এবং জাপান অ্যারোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি বৃষ্টিপাত এবং সংশ্লিষ্ট বায়ুমণ্ডলীয় ঘটনা অধ্যয়নের জন্য ক্রান্তীয় বৃষ্টিপাত পরিমাপ মিশন স্যাটেলাইট চালু করে। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে বজ্রপাতের ফ্রিকোয়েন্সি এবং ভৌগলিক বন্টন নিরীক্ষণের জন্য স্যাটেলাইটে একটি সেন্সর  ব্যাবহার করা হয়। 

বজ্রপাতের মুহুর্ত।

সেন্সর থেকে প্রকাশিত তথ্য দেখা যায় যে পৃথিবী বার্ষিক ভিত্তিতে প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৪৪টি বিদ্যুতের ঝলকানি তৈরি করে। উত্তরের গ্রীষ্মে প্রতি সেকেন্ডে সর্বাধিক প্রায় ৫৫টি ঝলকানি এবং দক্ষিণী গ্রীষ্মে প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৩৫টি ঝলকানি। স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত কিছু প্রাথমিক তথ্য বজ্রপাতের ক্রিয়াকলাপের বৈশ্বিক মানচিত্র তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়েছিল।  

লাইটনিং ইমেজিং সেন্সর।

এই মানচিত্রগুলি প্রকাশ করেছে যে সারা পৃথিবীতে বজ্রপাতের ভৌগলিক বন্টন অভিন্ন নয়। এটি সাধারণত গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে সর্বোচ্চ এবং নিরক্ষরেখার উত্তর ও দক্ষিণে দূরত্বের সাথে হ্রাস পায়।  যাইহোক, কিছু অঞ্চল এবং এমনকি ছোট এলাকায় ব্যতিক্রমী পরিমাণে বজ্রপাত হয়। ১৬ বছরের বজ্রপাতের ডেটা ব্যবহার করে গবেষকরা ০.১ ডিগ্রি রেজোলিউশনে তীব্র বজ্রপাতের ক্ষেত্রগুলির জন্য পৃথিবী স্ক্যান করতে সক্ষম হয়েছেন।  

কাতাটুম্বো হ্রদ।

এটি বজ্রপাতের ক্রিয়াকলাপের বৈশ্বিক বিতরণকে খুব স্পষ্ট ফোকাসে নিয়ে এসেছে। তারা ১৯৯৮ থেকে ২০১৩ পর্যবেক্ষণ সময়কালে পৃথিবীর ছোট অঞ্চলগুলি সনাক্ত করতে এবং র‍্যাংক করতে সক্ষম হয়েছিল যা সর্বাধিক পরিমাণে বজ্রপাত তৈরি করেছিল। আমেরিকান মেটিওরোলজিক্যাল সোসাইটির বুলেটিনে তাদের কাজের একটি বিস্তারিত তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। এই হটস্পটটি উত্তর-পশ্চিম ভেনেজুয়েলার একটি উপসাগর মারাকাইবো হ্রদের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত।

বর্তমানে এই হ্রদকে বিশ্বের বৈদ্যুতিক রাজধানী বলা হয়। এই এলাকায় ২৩২.৫২ এর একটি বাজ ফ্ল্যাশ রেট ঘনত্ব আছে। এর মানে হল যে এলাকাটি প্রতি বর্গকিলোমিটারে প্রতি বছর ২৯৭ দিন গড়ে ২৩২.৫২ বাজ পড়ে। কিন্তু ভেনেজুয়েলার লেক মারাকাইবো প্রতি বছর প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ২৩২.৫২ বজ্রপাতের ঝলকানি সহ “বিদ্যুতের সর্বোচ্চ সমাবেশের জন্য গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে এই হ্রদের নাম স্থান পায়।

মারাকাইবো হ্রদের তিন দিক পাহাড়ে ঘেরা সারা বছর জল খুব উষ্ণ থাকে, সাধারণত ২৮ থেকে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৮২ থেকে ৮৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর মধ্যে থাকে। দিনের বেলায়, হ্রদ এবং আশেপাশের পাহাড়গুলি সূর্যের দ্বারা উত্তপ্ত হয়। পাহাড়গুলি হ্রদের চেয়ে দ্রুত উষ্ণ হয় এবং হ্রদের উপরিভাগ জুড়ে বিবর্তিত বাতাস ভূমির দিকে চলে যায়।

বজ্রপাত।

তারপর রাতে, ভূমি হ্রদের চেয়ে দ্রুত শীতল হয় এবং বাতাসগুলি হ্রদের পৃষ্ঠ জুড়ে বিপরীত ভাবে একত্রিত হয়। এই প্যাটার্নটি হ্রদের উপরে পরিচলন ঘটায় এবং হ্রদের উপরে বারবার বজ্র ও বজ্রপাত সৃষ্টি করে। শীতল পর্বত বাতাস হ্রদের উপর উষ্ণ, আর্দ্র বাতাসের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

লেক মারাকাইবো হটস্পটটি কীভাবে প্রথম স্থানে রয়েছে তা বোঝাতে অন্যগুলোর সাথে তুলনা করা যায়। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানের হটস্পটগুলির ফ্ল্যাশ রেট ঘনত্ব ছিল ২০৫.৩১ (কাবারে, ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অফ কঙ্গো) এবং ১৭৬.৭১(কাম্পেনে, কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র)৷ ভেনেজুয়েলা এবং কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র ছাড়াও, কলম্বিয়া, পাকিস্তান এবং ক্যামেরুনের অবস্থান।

বিশ্বের শীর্ষ বজ্রপাতের স্থানের তালিকা।

জলবায়ুর পরিবর্তনজনিত কারণে আমাদের দেশেও বজ্রপাতের সংখ্যা ও এর আঘাতে মানুষের মৃত্যুর হার অনেক বেড়ে গেছে।প্রাকৃতিক দূর্যোগের তালিকায় ব্রজ স্থান করে নিছে।

তথ্যসুত্রঃ