ওয়েব টেলিস্কোপ কি মহাবিশ্বের প্রাচীনতম গ্যালাক্সি খুঁজে পেয়েছে?

কার্যক্রম শুরুর পর থেকেই জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ একের পর এক চমক দেয়া শুরু করেছে। গত ১২ই জুলাই মহাবিশ্বের বিস্ময়কর ছবি প্রকাশ করার এক সপ্তাহ পার হতে না হতেই মহাবিশ্বের আরেক বিস্ময়কর ছবি নিয়ে সামনে হাজির। 

ওয়েবের নতুন আবিষ্কার ১ হাজার ৩৫০ কোটি বছর আগের ছায়াপথ। গ্লাস জেড-১৩ নামের এই ছায়াপথটি বিগ ব্যাং এর ৩০ কোটি বছর পরে সৃষ্টি হয়েছে। আগের রেকর্ড-ব্রেকিং গ্যালাক্সির নাম জিএন-জেড১১।

হার্ভার্ড সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোফিজিক্সের রোহান নাইডু জানিয়েছেন, “এর আগে প্রাচীনতম যে ছায়াপথটি শনাক্ত করা হয়েছিলো, গ্লাস জেড-১৩ ছায়াপথটি তার থেকে ১০ কোটি বছরের বেশী প্রাচীন।” 

গ্লাস জেড-১৩ সবচেয়ে দূরবর্তী ছায়াপথ।

তিনি বলেন “আমরা সবচেয়ে দূরবর্তী নক্ষত্রের আলোর দিকে তাকিয়ে আছি যা আগে কেউ কখনও দেখেনি। মহাকাশের যে বস্তু আমাদের কাছ থেকে যত বেশি দূরে  তাদের আলো আমাদের কাছে পৌঁছাতে তত বেশি সময় নেয়, আর তাই দূরের মহাবিশ্বের দিকে ফিরে তাকানো মানে গভীর অতীতে দেখা”

প্রাথমিকভাবে, এর অসাধারণ উজ্জ্বলতা এবং ভর বিজ্ঞানীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।  তারা অনুমান করছেন যে এটির ভর আমাদের সূর্যের ভরের প্রায় ১ বিলিয়ন গুণের বেশি। এত বেশি ভর থাকা সত্ত্বেও, এটি মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সী থেকে আকারে ছোট।  মিল্কিওয়ের প্রস্থ প্রায় ১০০০ হাজার আলোকবর্ষ, যেখানে গ্যালাক্সি গ্লাস-জেড১৩ এর প্রস্থ মাত্র কয়েক হাজার আলোকবর্ষ। 

গ্লাস-জেড১৩ এখন পর্যন্ত দেখা সবচেয়ে প্রাচীনতম গ্যালাক্সি। 

বিজ্ঞানীরা কাছাকাছি আরেকটি গ্যালাক্সি খুঁজে পেয়েছেন – গ্লাস জেড-১১। এটি আগের রেকর্ডধারীর (হাবল স্পেস টেলিস্কোপ দ্বারা আবিস্কৃত) বয়সের মতোই, আকার বেশ ছোট। গ্লাস জেড-১১ এর প্রস্থ হল ২৩০০ আলোকবর্ষ।

যদিও গ্লাস জেড-১৩ মহাবিশ্বের প্রথম যুগে বিদ্যমান ছিল, তবে এর সঠিক বয়স অজানা রয়ে গেছে। কারণ এটি প্রথম ৩০০ মিলিয়ন বছরের মধ্যে যে কোনো সময় গঠিত হতে পারে। ছায়াপথটি ওয়েব টেলিস্কোপের মূল ইনফ্রারেড ক্যামেরা (যাকে বলা হয় NIR-cam) তার উপাত্ত থেকে এই গ্যালাক্সিটিকে শনাক্ত করা হয়েছে। 

গত সপ্তাহে নাসা ওয়েবের প্রথম যে ছবির সেট প্রকাশ করে তখন এই তথ্য সামনে আসেনি। যখন ওয়েবের ডেটা ইনফ্রারেড থেকে দৃশ্যমান বর্ণালীতে রুপান্তর করা হয়, তখন গ্যালাক্সিটি কেন্দ্রে সাদা এবং বাইরে লাল বিন্দু হিসাবে দৃশ্যমান  হয়।

কোপেনহেগেন ইউনিভার্সিটির নিলস বোর ইনস্টিটিউটের সৌজন্যে এই অবিকৃত চিত্রটি ওয়েব টেলিস্কোপের ধারন করা প্রাচীনতম গ্যালাক্সী গ্লাস-জেড১৩।

 নাইডু এবং সারা বিশ্বের ২৫ জন জ্যোতির্বিজ্ঞানীর একটি দল একটি বৈজ্ঞানিক জার্নালে তাদের ফলাফল জমা দিয়েছে৷ আপাতত, গবেষণাটি একটি প্রিপ্রিন্ট সার্ভারে পোস্ট করা হয়েছে। তাই এটি সতর্কতার সাথে এখনও আরো পর্যালোচনা করা বাকি আছে।  তবে এটি ইতিমধ্যে বিশ্বব্যাপী জ্যোতির্বিদ্যা সম্প্রদায়কে আলোড়িত করেছে৷

 নাইডু আরো বলেছেন যে মার্কো কাস্তেলানোর নেতৃত্বে জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের আরেকটি দল যারা একই ডেটাতে কাজ করেছিল তারা একই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।

নাইডু এবং তার সহকর্মীরা ইতিমধ্যে তাদের অনুমান নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় আরো কাজ করছেন।  পরবর্তী পর্যবেক্ষণগুলি গ্লাস-জেড১৩ থেকে আসা আলোর বর্ণালীর নির্দিষ্ট অংশগুলি দেখবে।  এটি তাদের গ্যালাক্সি প্রার্থীর রেডশিফটকে আরও সুনির্দিষ্টভাবে পরিমাপ করার অনুমতি দেবে।

“এগুলি প্রথম নক্ষত্র বা ছায়াপথ নয়। আমরা আগামী বছরগুলিতে আরও অনেক রেকর্ড-ব্রেকিং গ্যালাক্সি দেখার আশা করতে পারি। আমি মনে করি আমরা আরও অনেক দূরের জিনিস দেখতে যাচ্ছি, অনেক পুরানো, যেগুলি বিগ ব্যাং-এর কাছাকাছি তৈরি হয়েছিল।”

রোহান নাইডু

ওয়েবের অনেক কাজের মধ্যে প্রধান কাজ হলো ১৩.৮ বিলিয়ন বছর আগে বিগ ব্যাঙ-এর পরে গঠিত প্রাচীনতম ছায়াপথগুলি খুঁজে বের করা। 

তথ্যসুত্র: